অপেক্ষা

অপেক্ষা

চুল বাঁধাটা মনের মতো হচ্ছে না বলে আবার বেণী খুলে ফেললো তিথি। স্কুলে যেতে দেরী হচ্ছে দেখে নদী চলে এসেছে। নদী তিথির সবচেয়ে কাছের বান্ধবী।

আজও তোর জন্য দেরী হবে রে তিথি।

আর একটু বস চুলটা বাঁধা হলেই চলে যাবো।

তুই কি ভাত খেয়েছিস?

না, এসে খাবো।

ধ্যাত। তুই রেডি হ। আমি নিয়ে আসি তোর খাবার। খাইয়ে দিলে খাবি তো?

যা যা নিয়ে আয়।

এভাবেই চলছিল তিথির দিন কাল। বয়স ১৪/১৫। কয়েক মাস পর এসএসসি পরীক্ষা শুরু তাই এখন নিয়মিত স্কুলে ক্লাস করে। নদী নামের মেয়েটা ওর সবচেয়ে ভালো বন্ধু। নিজের মনের সব কথাই ও নদীর সাথে শেয়ার করে। কালো দেখতে তিথি নামের মেয়েটি পড়াশোনা আর পরিবার-বন্ধু মহল ছাড়া কাউকে নিয়ে কখন চিন্তা করেনি। যদিও ওর বিয়ের জন্য অনেকগুলো প্রস্তাব এসেছিল কিন্তু ও এখন পড়াশোনা নিয়ে কিছু ভাবতে চায় না। ডাক্তার হওয়ার খুব শখ তিথির।

বান্ধবীর সাথে সব সময় হেঁটেই স্কুলে যাতায়াত করে। আজও তাই করল।

তিথি ঐ ছেলেটাকে পরিচিত লাগছে না?

আরে ও তো আমাকে আগে কয়েকবার চিঠি দিয়েছিল। ভুলে গেছিস?

ওহ এটা শফিক ভাই? কিশোরগঞ্জ থেকে রাজশাহী আসে এই লোকটা! শুধু একবার তোকে চোখের সামনে দেখার জন্য এতো দূরে আসেন। ভাবতেই অবাক লাগে রে।

ধুর বাদ দে। ছেলেরা এমন করে। এখন এগুলো পাত্তা দিতে পারবো না। লোকটার দিকে তাকাস না প্লিজ।

শফিক বাইশ/তেইশ বছরের এক টগবগে যুবক। চাকরীর সুবাদে তিথির বাবা কিশোরগঞ্জে গিয়েছিলেন। বাবার জন্য তিথিরও যেতে হয়েছে। তখন থেকেই তিথিকে পছন্দ করে শফিক। তিথি কোন কথার উত্তর দেয় না। তবুও চেষ্টার ত্রুটি নেই ওর। শফিক দেখতে অনেক সুন্দর। নায়ক বললেও কম হবে। হাজার হাজার সুন্দরীরা তার আশেপাশে ঘোরে। কিন্তু তার মনে এই কালো হরিণের কালো চোখ ছাড়া আর কিছুই নেই। তাই তো বার বার ছুটে চলে আসে। তিথিরা এখন রাজশাহী থাকে। শফিকের মন একটু উড়ু উড়ু। তাই পড়াশোনাটা শেষ করা হয়নি। অনেক কষ্টে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। পাশও করেছে ভালো ভাবে। জানে না শফিক কিসের টানে আজও সে তিথির পেছন পেছন ঘোরে। কখনই কি ওর চিঠির জবাব দেবে না তিথি? ভাবতে ভাবতে ওর সামনে চলে আসলো শফিক। আজও ওর হাতে একটা চিঠি।

আপনি আবার কেন এসেছেন? কি চান আপনি?

আমার চিঠিগুলোর জবাব দিলে না তো। কিছুই তো বললে না তুমি। এই চিঠিটা পড়ে আমাকে অবশ্যই উত্তর দিবে।

অনেক সুন্দর লাগছে আজ শফিককে। তিথি না তাকিয়ে পারল না। সত্যি এতো সুন্দর ছেলে সে আগে কখন দেখেনি। মনের বরফ গলে যাবে মনে হচ্ছে তিথির।

আমি আসি তিথি। সামনের সপ্তাহে আবার এই বান্দা তোমার সামনে হাজির হবে।

না চাইতেও হেসে দিল তিথি। সাথে নদীও। এতক্ষণে নদী মুখ খুলল।

শফিক ভাইয়া অবশ্যই আসবেন। আর এই পাজি মেয়ে না আসলে আমি ওকে আপনার কাছে নিয়ে আসব।

তিনজন একসাথে হেসে উঠল। যদিও তিথি ওর হাসিটা লুকানোর চেষ্টা করল।

স্কুল শেষে বাড়ির পথ ধরে আসার সময় সত্যিই বুকটা কেমন করে উঠল শফিকের জন্য। কখন এভাবে ভেবে দেখেনি তিথি। ওর মতো একটা মেয়ে শফিকের কাছে কিছুই না। ইচ্ছে করলেই শফিক অনেক সুন্দরী মেয়ের সাথে প্রেম করতে পারে। তবুও কিসের টানে শফিক ওকে দেখতে আসে?

বাড়িতে ঢুকেই শুনতে পেলো বড় ভাইয়ের চিৎকার চেঁচামেচি। মনটা সাথে সাথে বিষিয়ে গেলো তিথির। কিছুক্ষণ আগে ভালই তো ছিল ও নদীর সাথে। ভালো লাগে না এই বাড়িতে থাকতে। হঠাৎ করে সামনে চলে এলো তিথির বড় ভাই মামুন। খুব রাগী লোক। পান থেকে চুন খসলে গায়ে হাত তুলতে দ্বিধা করেন না তিনি।

তিথি তুই স্কুলে যাওয়ার সময় কার সাথে কথা বলছিলি?

তিথি অনেক বেশি ভয় পেয়ে গেলেও কিছু বলল না।

কি তুই চুপ করে আছিস কেন? কি ভাবিস তুই আমার কানে কোন কথা আসে না? শফিকের সাথে তোর কিসের সম্পর্ক? এতো কিসের হাসাহাসি রাস্তায়?

ভাইয়া আমি কিছু করিনি।

তাহলে ওই ছেলে বার বার আসে কেন এখানে? কি চায় ওই ধূর্ত ছেলে? ও কেমন ছেলে তুই কি কিছু জানিস?

ভাইয়া সে খারাপ লোক না।

তিথির বলতে দেরী কিন্তু ওর ভাইয়ের চড় দিতে দেরী হল না।

এত্ত বড় সাহস তোর? তুই আমার সাথে তর্ক করিস? তোর জন্য বিয়ের সম্বন্ধ এসেছে। ওরা যদি দেখে ফেলত কি ভাবত তাহলে।

রাগের চোটে খুব খারাপ অবস্থা হয়ে গেলো তিথির। রাগের বসে মানুষ অনেক কথাই বলে। তিথি মনের গোপনে রাখা কথাটা বলে ফেললো।

ভাইয়া আমি যদি জীবনে কাউকে বিয়ে করি তাহলে সেটা শফিক। আমি ওকে ভালোবাসি।

তোর কি মাথার ঠিক আছে? তুই কোনদিন ওর সাথে ভালো থাকবি না। ও ভালো মানুষ না।

চুপ করে দাঁড়িয়ে আছে তিথি। এবার যে চিঠিটা দিয়েছিল সেটার কথা গুলো মাথায় ঘুরছে ওর।

“ তিথি আমাকে তুমি ভালোবাসো আর নাই বাসো আমি তোমাকে সারা জীবন এভাবেই ভালোবেসে যাবো। তুমি আমাকে ভয় পেয়ো না। আমি জানি তোমার পড়াশোনার অনেক ইচ্ছে। তুমি যদি আমাকে বিয়ে করো তাহলে নিজের রক্ত বিক্রি করে হলেও তোমাকে পড়াশোনা করাবো। অনেক ভালোবাসা নিয়ো। আমাকে একটা হলেও চিঠির জবাব দিয়ো ”

এতো চিৎকার চেঁচামেচির মধ্যেও ওর কথা মনে পড়ে গেলো তিথির। ভাইয়ের কথায় আবার বাস্তবে ফিরে এলো।

কি হল কি ভাবছিস?

বিয়ে করলে আমি ঐ ছেলেকেই বিয়ে করবো।

এসএসসি পরিক্ষার পর দেখতে দেখতে ওর সাথে বিয়ে হয়ে গেলো শফিকের সাথে। হাজার রঙিন স্বপ্ন দেখতে লাগলো তিথি। ধুমধাম করেই বিয়ে হয়ে গেলো ওদের। যদিও বড় ভাইয়ের সম্মতি ছিল না।

শ্বশুর বাড়ীর সবাই অনেক ভালো। স্বামী হিসেবে শফিককে পেয়ে তিথি অনেক বেশী ধন্য। এমন সুন্দর চেহারার ছেলে, ব্যবহার, কথা আর কণ্ঠ এতো সুন্দর। তিথি মুখে যাই বলুক না কেন। ও কিন্তু অনেক বেশী সুন্দরের পূজারী। বিয়ে করে শফিক ওকে কিশোরগঞ্জ নিয়ে এলো। অনেক আত্মীয়স্বজন ছিল শফিকের সাথে। এখন বউকে মায়ের কাছে নিয়ে যাবে।

আম্মা তোমার বউকে দেখ।

তিথি অনেক বুদ্ধিমতী কারো কোন কথার অপেক্ষা না করে টুক করে শাশুড়ির পা ধরে সালাম করে নিলো। কিন্তু খুব স্পষ্ট বোঝা গেলো তিনি তিথিকে মোটেও পছন্দ করেননি। মনটাই খারাপ হয়ে গেল তিথির।

তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়েই শুরু হল তিথির নতুন জীবন। অনেক ভালোবাসা পেলো স্বামীর থেকে। অনেক ভালো শফিক। কিন্তু কয়েকমাস পর দেখল শফিক একদম বাড়ির বাইরে যায় না। আগের মতো ঘুরতে নেয় না। কোন কাজও করে না। শুধু বাসায় বসে থাকে। জিজ্ঞেস করলে বলল,

“আমার কাছে টাকা নেই। কি করবো বাইরে গিয়ে? তুমি কি পারবে আমাকে টাকা দিতে?”

জানে না কি করে এনে দেবে টাকা তবুও বলল,

“আমি এনে দেবো তোমাকে তুমি কি তাহলে স্বাভাবিক ভাবে চলবে? কিছু একটা তো করো।”

“ঠিক আছে তাহলে আমাকে এনে দাও।”

পরের দিন বাড়ীতে চলে গেলো তিথি। বাবার কাছ থেকে টাকা নিয়ে আসলো। ২ দিনের মাথায় শফিক টাকা হাতে পেলো। কত যে খুশি হল শফিক। অনেক বেশি ভালো লাগছে এখন তিথির। সব সমস্যার যেন অবকাশ ঘটল। কিন্তু সে সুখ বেশি দিন সইল না ওর কপালে। জুয়া খেলে সব টাকা হেরে রাগে গজ গজ করতে করতে আবার বাড়িতে বসে রইলো। এভাবেই চলতে লাগলো দিনকাল স্বামীর ঘরে।

একটা লোক এলো সেদিন তিথিকে দেখতে। বলল,

“শফিক নতুন বউকে নিয়ে ঘুরতে বের হও না কেন?”

শফিকের উত্তর শুনে সেদিন মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ল তিথির।

“আরে ভাই কালো বউকে নিয়ে কি এতো ঘুরাঘুরি করা যায়।”

খুব কষ্ট পেলেও চুপ করে ছিল সেদিন। সেদিন ভালোবাসা কমার কথা থাকলেও কমাতে পারেনি তিথি।

এদিকে শফিক বেকার থাকে বলে সংসারের যাবতীয় কাজ তিথিকে করতে হয়। এক কথায় কাজের বুয়ার সব কাজ। এখানে সবাই একান্নবর্তী পরিবারে থাকে। সুতরাং কিছু না কিছু সবাই দেয় সংসারে শফিক ছাড়া। এতো দিনে অনেক ভয়ঙ্কর একটা জিনিস দেখল তিথি। খুব বদ মেজাজি লোক শফিক। অনেক সময় রাগ হলে হাত উঠে যায় ওর। তিথি বাথরুমে গিয়ে কাঁদে। কাউকে ওর মনের দুঃখের কথা বলে না। মানুষের যে এতো রূপ থাকতে পারে তা ও কখন বিশ্বাস করতে পারে না। ওর ননদ, ননাস, শাশুড়ির সামনেও অনেক সময় অপমান করে কথা বলে ফেলে শফিক।

অনেক সদস্য পরিবারে তাই অনেক রান্না হয়। শাশুড়ি সবাইকে বেড়ে দেন। সবার খাবার শেষ হলে অল্প একটু তরকারি আর ভাঙা মাছ থাকে ওর জন্য। খুব অবাক লাগে তিথির যখন বাড়িতে ছিল তখন ওর মা থালা ভরে তরকারি দিতো আর ও না খেয়ে স্কুলে যেতো। তিথি কিচ্ছু বলে না। অনেক বেশি ভালোবাসে ও শফিককে কোথাও যাবে না ও ওকে ছেড়ে। যত কষ্টই হোক। বড় ভাইয়ের কথা মিথ্যা প্রমাণ করে ছাড়বে।

বিয়ের বছর ঘুরতে না ঘুরতেই গর্ভবতী হয়ে গেলো তিথি। অদ্ভুত এক অনুভূতি। অনেক বেশী লাজুক তিথি, তাই সে কারো সামনেও যেতে চায় না এখন। শফিক তো মহা খুশি, ভালো ভাবেই যত্ন নেয় মেয়েটার। অনেক কিছু কিনে দেয় ওকে। কিন্তু মায়ের কাছে যেতে ইচ্ছে করছে। চলে গেলো রাজশাহী  কিছুদিন পরই। অল্প বয়সের কারণে তিথির নানান সমস্যা দেখা দিল। ১০ মাস পরই প্রসব ব্যথা উঠলো মেয়েটার। হাসপাতালে নেয়ার পর ডাক্তার বলল হয় মাকে না হয় বাচ্চাকে বাঁচাতে পারবো। শফিক বলল যে করেই হোক তিথিকে বাঁচান। তিথি বেঁচে গেলেও বাচ্চাটাকে বাঁচানো গেলো না। পাগল প্রায় অবস্থা হল ওর। অনেক বেশি সুন্দর হয়েছিল ছেলেটা। বাচ্চা দেখলেও ভয় পেত ও। কেঁদে ফেলত নিজের অজান্তে। এই সময়টাতে সম্পূর্ণ ভাবে মানসিক সাহায্য দিয়েছে শফিক। অনেক ভালোবাসা দিয়ে ওকে ভোলানোর চেষ্টা করেছে। বলেছে যদি আমাদের কখনো আর বাচ্চা নাও হয় আমার কোন সমস্যা নেই। তুমি শুধু ভালো থেকো তিথি। আমার আর কিছু চাই না। ডাক্তারের পরামর্শে ২ বছর পর একটা টুকটুকে মেয়ে বাবু হল তিথির। চিনির মতো সাদা একটা মেয়ে হল ওর। নাম দিল তুয়া।

দেখতে দেখতে তুয়া বড় হতে লাগলো। শফিক এখন ভালই উপার্জন করে। ভালই আছে পরিবারটা। যখন ও ভালো অনেক ভালো কিন্তু যখন খারাপ তখন এতো বেশি খারাপ ব্যবহার করে যে কোন মানুষ ওর সাথে থাকবে না। তবুও আছে তিথি। তিথির সৌন্দর্য যেন আগের থেকে আরও বেশি বেড়ে গেছে। যদি ও চায় তাহলে অন্য একজনের সাথে ওর বাবা মা বিয়ে দিয়ে দিবে। কারণ উনারা জানেন শফিক খুব একটা সুখে রাখেনি তিথিকে। কিন্তু তিথির পক্ষে এ যে অসম্ভব।

মেয়ের পর একটা ছেলে হল তিথির। অনেক মায়াবী চেহারা ওর। শফিক আজ ভালো হলে কাল খারাপ থাকে। আজ উপার্জন করলে কাল করে না। খুব অশান্তিতে আছে ও। কিন্তু কখনো ছাড়ার কথা ভাবতে পারে না। অপেক্ষায় আছে কবে লোকটা ওর ভালোবাসা বুঝতে পারবে।

অদ্ভুত ব্যপার ওদের বিয়ে হয়ে ছিল ১৪ই ফেব্রুয়ারি, ভালোবাসা দিবসে। কোন পরিকল্পনা ছিল না। এমনিতেই মিলে গেছে। আজও তেমন একটি ১৪ তারিখ এসেছে। ছেলেমেয়েরা বড় হয়েছে। সংসারও চলছে, শফিক আজও তেমনই আছে। কোন পরিবর্তন আসেনি ওর ভেতর। তিথিও পরিবর্তন করতে পারেনি নিজেকে। এখনো পাগলের মতো ভালবাসে লোকটা। অপেক্ষায় আছে কোনদিন হয়তো বুঝতে পারবে ও কতটুকু ভালবাসে শফিককে। এই লোক ছাড়া ওর পৃথিবীতে আর কিছুই নেই। যে যাই বলুক, এই রাজপুত্রের জন্য ও আজও সব করতে পারে।

শফিকরা কি কখনো ভালো হবে। বুঝতে পারবে তিথিদের মনের কথা???

অপেক্ষায় রইল তিথি, অপেক্ষায় রইলো সবাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *