ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর যেন এক মৃত্যুফাঁদ

ত্রিভুবন

১২ মার্চ ২০১৮ তে নেপালের ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ঘটে গেল এক মর্মান্তিক বিমান দুর্ঘটনাট। নিহত হয়েছে অন্তত ৪৯ জন। এদের মধ্যে অনেকেই ছিলেন বাংলাদেশী। বিভিন্ন গণমাধ্যমে পাইলটের সাথে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলারের কথপোকথনের সময় সৃষ্ট ভুল বোঝাবুঝি, বিমানের যান্ত্রিক ত্রুটি, পাইলটের ভুল ইত্যাদি নানান সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে। সঠিক কারণ এখন বের করা সম্ভব হয়নি।

নেপাল দেশটি পর্যটনের জন্য বিখ্যাত। প্রতিবছর হাজার হাজার মানুষ এখানে ঘুরতে আসে পরিবার পরিজনদের নিয়ে। নেপাল আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ হওয়ার দরুন অনেক বাংলাদেশীরাই এখানে ঘুরতে যান।

ত্রিভুবনইউএস বাংলা ফ্লাইট বিএস ২২১ ফ্লাইটে করে যাচ্ছিলেন এমন অনেক ভ্রমণ পিয়াসু মানুষরা। বিমানবন্দরে অবতরণের আগে হয়তো মনে মনে পরিকল্পনা করছিলেন কিভাবে কোথায় ঘুরতে যাবেন। কিছুক্ষণের মধ্যে সব কিছু এলোমেলো হয়ে গেলো।

ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বর্ণনা

নেপালের একমাত্র আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হচ্ছে ত্রিভুবন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টটি। এই বিমানবন্দর ছাড়াও অনেকগুলো স্থানীয় বিমানবন্দর আছে।

এ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটির অবস্থান রাজধানীর কেন্দ্র থেকে ছয় কিলোমিটার দূরে কাঠমান্ডু উপত্যকায়।

সমুদ্র সমতল থেকে এর উচ্চতা ৪ হাজার ৪০০ ফুট এবং এর রানওয়ে প্রায় তিন কিলোমিটার দৈর্ঘ্য।

ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর বিমানবন্দর বলার কারণ

এর চারিদিকে পাহাড়। প্রাকৃতিক কারণে বিমান অবতরণের সময় অনেক সমস্যা দেখা যায়। ঘটে যায় দুর্ঘটনা।

এখানে ‘ইনস্ট্রুমেন্ট ল্যান্ডিং সিস্টেম’ নেই। বিশেষ এই সিস্টেম থাকলে খারাপ আবহাওয়ার কারণে খালি চোখে রানওয়ে দেখা না গেলেও যন্ত্রের সাহায্যে রানওয়ের অবস্থান শনাক্ত করা সম্ভব হয়।

পর্বত ছাড়াও প্রায়ই ঘন কুয়াশা ঘিরে ফেলে ত্রিভুবন বিমানবন্দরকে। এ কারণে ফ্লাইট পরিচালনায় বিপত্তিতে পড়তে হয় পাইলটদের।

কিন্তু বিমান সংস্থাগুলো লাভের আশায় ঝুঁকিপূর্ণ এই বিমানবন্দরে ফ্লাইট পরিচালনা করে।

এখানে অবতরণের সময় প্রধান বাধা একটি বিশাল পাহাড়, এটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৮৭০০ ফুট উঁচুতে অবস্থিত। নয় মাইল দূরে রয়েছে এই পাহাড়।

এ জন্য এই রানওয়েতে কোনো বিমানই সোজা অবতরণ করতে পারে না। ওই পাহাড় পেরোনোর পরপরই দ্রুত বিমান অবতরণ করাতে হয়।

সম্প্রতি ঘটে যাওয়া দুর্ঘটনা নিয়ে ডুমুরফুলের কিছু কথা

ত্রিভুবন

ইউএস বাংলা ফ্লাইট বিএস ২২১ ফ্লাইটটি ধ্বংস হওয়ার কারণ হিসেবে ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর অনেকাংশেই দায়ী।

কিন্তু ৪৯ টি প্রাণের আলো নিভে যাওয়ার দায়ভার কি ইউএস বাংলার নেই।

১৭ বছরের পুরনো বিমান দিয়ে কিভাবে ত্রিভুবনের মত একটি বিমানবন্দরে এতোগুলো মানুষ পাঠাতে পারে তারা।

নিজেদের লাভ ছাড়া আর কিছুই কি মূল্য রাখে না তাদের কাছে। একই পরিবারের কয়েকজন সদস্য মারা গেছে এই দুর্ঘটনায়।

যারা বেঁচে থাকবেন তারা হয়তো সারা জীবন এই আক্ষেপ করবেন মৃত্যু কেন আমাকে প্রত্যাখ্যান করল।

ইউএস বাংলা আপনাদের কাছে অনুরোধ রইলো এই মানুষগুলোর প্রশ্নের জবাব দিবেন।

পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর ১০ টি মসজিদ, না জেনে নিলে ভুল করবেন

মসজিদ

মসজিদ শব্দটি আরবি ভাষা থেকে এসেছে। শব্দটির আক্ষরিক অর্থ হচ্ছে যেখানে সিজদা করা হয়। এই সিজদা শব্দটির মানে হচ্ছে শ্রদ্ধাভরে মাথা নত করা। মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা এক আল্লাহ্‌ ছাড়া কারো কাছে মাথা নত করেন না। সুতরাং বুঝতেই পারছেন মসজিদ কতটুকু গুরুত্ববহন করে। পৃথিবীতে নানান সুন্দর স্থাপনার মধ্যে মসজিদও আছে। ওয়ান্ডারলিস্ট প্রতিষ্ঠানটি পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর ১০ টি মসজিদের একটি তালিকা বের করেছে। চলুন দেখে আসি।

১০। সুলতান মসজিদ, সিঙ্গাপুর

মসজিদ

১৮২৪ থেকে ১৮২৬ সালে এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে। এই মসজিদটি সিঙ্গাপুরের কেন্দ্রীয় মসজিদ।

বড় এবং সুন্দর মসজিদ হিসেবে সুলতান মসজিদের বেশ পরিচিতি রয়েছে। জুম্মাবারে এই মসজিদে নামাজ আদায় করার জন্য প্রায় সব সিঙ্গাপুরী মুসলিমরা ভিড় করে।

বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর মসজিদের তালিকাতে দশম স্থানে রয়েছে মসজিদটি।

৯। বাদশাহি মসজিদ, পাকিস্তান

মসজিদ

পাকিস্তানের লাহোরের কেন্দ্রীয় মসজিদ হিসেবে বেশ খ্যাতি রয়েছে এই মসজিদটির। মসজিদটি পাকিস্তানের রাজকীয় একটি স্মারক।

সম্রাট আওরঙ্গজেব ১৬৭১ সালে মসজিদটি নির্মাণ করেছেন। এই মসজিদটি পাকিস্তানের দ্বিতীয় বৃহৎ ও এশিয়ার পঞ্চম বৃহৎ মসজিদ হিসেবে স্বীকৃত।

আর বিশ্বের সবেচেয়ে সুন্দর মসজিদের তালিকাতে নবম স্থানে রয়েছে বাদশাহি মসজিদ।

৮। তাজ-উল-মসজিদ, ভারত

মসজিদ

এশিয়া মহাদেশের অনত্যম সুন্দর এই তাজ-উল-মসজিদ। ভারতের ভুপালে মসজিদটি অবস্থিত। এখানে বিরাট ইসলামী শিক্ষালয় গড়ে উঠেছে মসজিদকে কেন্দ্র করে। বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর মসজিদের তালিকার অষ্টম স্থানে রয়েছে এই মসজিদটি।

৭। ফয়সাল মসজিদ, পাকিস্তান

মসজিদ

সপ্তম স্থানে আবার পাকিস্তানের একটি মসজিদ স্থান করে নিয়েছে। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মসজিদের তালিকাতে চতুর্থ স্থান অধিকারী এই ফয়সাল মসজিদ।

সৌদি আরবের বাদশাহ ফয়সালের নাম স্মরণে এই মসজিদের নামকরণ করা হয়েছে। পাকিস্তানের ইসলামাবাদে অবস্থিত।

৬। জহির মসজিদ, মালয়েশিয়া

মালয়েশিয়ার অন্যতম পুরানো ও ঐতিহ্যবাহী একটি মসজিদ এই জহির মসজিদ। মালয়েশিয়ার কেদাহ প্রদেশে ১৯১২ সালে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়।

ইতিহাস বলে, সুলতান তাজ উদ্দীন মুকারম শাহের ছেলে টুংকু মাহমুদ এই মসজিদটি তৈরি করেছিলেন।

বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর মসজিদের তালিকার ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে এটি।

৫। সুলতান ওমর আলী সাইফুদ্দিন মসজিদ, ব্রুনাই

মসজিদ

ব্রুনাইয়ের রাজকীয় বা কেন্দ্রীয় মসজিদ এটি। ১৯৬৮ সালে মসজিদটি নির্মিত হয়। এশিয়া মহাদেশের মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর মসজিদ বলা যায়। আর বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর মসজিদের তালিকাতে পঞ্চম স্থানে সুলতান আলী সাইফুদ্দিন মসজিদ।

৪। গ্রান্ড মসজিদে হাসান (দ্বিতীয়), মরক্কো

মসজিদ

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মসজিদের তালিকাতে এটি সপ্তম স্থানে রয়েছে। আর পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর মসজিদের তালিকাতে এই মসজিদটির অবস্থান চতুর্থ। মরক্কোর কাসাব্লাংকা নামক স্থানে অবস্থিত মসজিদটি।

৩। মসজিদে আল আকসা,  ফিলিস্তিন

মসজিদ

যে ফিলিস্তিনি মানুষরা আজ এতো নিপীড়নের শিকার তাদের দেশেই অবস্থান করছে পৃথিবীর তৃতীয় সুন্দর মসজিদটি।

মুসলমান জাতির প্রথম কিবলা মসজিদ। ফিলিস্তিনের জেরুজালেমে অবস্থিত মসজিদটি। এই মসজিদটির অপর নাম বায়তুল মোকাদ্দাস।

উল্লেখ্য রাসুল (সা.) এই মসজিদ প্রাঙ্গণ থেকে মিরাজের সফরে গিয়েছিলেন।

২। মসজিদে নববী, সৌদি আরব

মসজিদ

আল্লাহ্‌র প্রিয় বন্ধু হলেন মহানবী (সা.)। আর এই মসজিদটির প্রতিষ্ঠাতা স্বয়ং মহানবী (সা.)। এই জন্য এই মসজিদটির নামকরণ করা হয়েছে মসজিদে নববী হিসেবে।

এটি পৃথিবীর সবচেয়ে দ্বিতীয় সুন্দর মসজিদ এবং অনেকে বলেছেন এটি পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহৎ মসজিদও।

সৌদি আরবের মদিনাতে এই মসজিদটি অবস্থিত। অসাধারণ সুন্দর একটি স্থাপনা এটি। ১৮৩৭ সালে প্রথম এই মসজিদের গম্বুজটিতে সবুজ রং করা হয়।

আপনি কি পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর মসজিদটি দেখতে উদগ্রীব তাহলে আর দেরী নয়। এক ঝলকে দেখে নেই পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর মসজিদটিকে।

১। মসজিদ-উল-হারাম, সৌদি আরব

মসজিদ

এই মসজিদটিও সৌদি আরবে অবস্থিত। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় এবং সবচেয়ে সুন্দর এই মসজিদ-উল-হারাম।

এই মসজিদটি সৌদি আরবের মক্কাতে অবস্থিত। পবিত্র হজ্জের সময় একসাথে প্রায় ৪০ থেকে ৪৫ লাখ মুসলিম এই মসজিদে ইবাদত বা সালাম আদায় করতে পারে। বুঝতেই পারছেন এর বিশালতা কতটুকু।

ফরিদপুরে পাওয়া গেলো পৃথিবীর সবচেয়ে সস্তা হোটেলের খোঁজ

হোটেল

শায়েস্তা খাঁর আমল শেষ হয়েছে আজ অনেক বছর হল। এখন সেই যুগ নেই যে অল্প টাকায় অনেক কিছু পাবেন।

কিন্তু আমি যদি আপনাকে প্রতি রাত হোটেল ভাড়া ২৬ টাকা বলি আপনি কি বিশ্বাস করবেন? না করলে ঠকবেন।

আসুন জেনে নিন কোথায় এবং কিভাবে পাবেন।

এই অদ্ভুত হোটেলটি আমাদের বাংলাদেশেই আছে। জায়গার নাম ফরিদপুর। হোটেল গুলো পানিতে ভাসমান অর্থাৎ নৌকায়।

পাঁচটি নৌকা নিয়ে এই হোটেলটি তৈরি। নৌকার ভেতর রয়েছে থাকা খাওয়ার সুব্যবস্থা।

হোটেলের খরচ

প্রতিরাতে বেড পিছু খরচ ২৬ টাকা।

হ্যাঁ ঠিক দেখছেন ২৬ টাকা। খরচের হিসেবে পাচ্ছেন আরও কিছু সেবা। পানি এবং টয়লেটের সুবিধা পাচ্ছেন একদম বিনা মূল্যে।

আপনারা যারা ভ্রমণ পিয়াসি তাদের জন্য সত্যিই এটি একটি স্বর্ণ সুযোগ।

স্থানীয় শ্রমিক শ্রেণীর মানুষেরা এখানে থাকতে আসেন।

কাজের সুবাদে অনেকে থেকে জান কয়েক মাস।

বাসা ভাড়া করলে যেখানে খরচ পরে যায় অনেক বেশি সেক্ষেত্রে এখানে দিন প্রতি ভাড়া গুনলেই থাকতে পারছেন অনায়েশে।

জনপ্রতি থাকছে একটি ছোট্ট লকার। এখানে প্রাইভেট কেবিনও আছে। খরচ কিছুটা বেশি।

রাত পিছু খরচ পরবে ৮৬ টাকা।

মোট ৪০ জনের থাকার ব্যবস্থা আছে এই নৌকা হোটেলে।

২৬ বছর ধরে এই ব্যবসার সাথে যুক্ত আছেন মোঃ মুস্তাফা মিয়ান।

রমরমিয়ে চলছে ব্যবসা। এই হোটেলে আপনি তিন মাস থাকতে পাড়বেন।

এত কম খরচের বিনিময়ে মাথা গোঁজার মতো জায়গা কে হাতছাড়া করতে চায়।

বাংলাদেশের ছোট শহর এবং গ্রামের মানুষেরা ব্যবসার সুবাদে বিভিন্ন এলাকায় আসেন। এখানে আসলে তারা এত সুবর্ণ সুযোগ কখনই হাত ছাড়া করেন না। অন্যান্য হোটেল গুলোতে থাকতে হলে গুণতে হয় বড় অঙ্কের টাকা। কিন্তু মিয়ানের এই নৌকা হোটেল অনেক মানুষের খরচ অনেকাংশেই কমিয়ে দিয়েছে। একটা কথা বলতে ভুলে গেছি এখানে খাবার পাওয়া যায় না। নিজের খাবারের ব্যবস্থা আপনাকেই করতে হবে।

ফরিদপুরের এই “বোট হোটেল” পৃথিবীর সবচেয়ে সস্তা হোটেলের তালিকায় শীর্ষে অবস্থান করছে।