কুকুর যখন মানুষের জীবন দানকারী

কুকুর

কুকুর যে মানুষের কত ভালো বন্ধু তা আমরা সবাই জানি। কিন্তু এই কুকুর যখন নিজের জীবন বিপন্ন করে মনিবকে বাঁচাতে যায় তখন তাকে শুধু বন্ধু উপাধিতে সীমাবদ্ধ করা যায় না। আসুন দেখে নেই এমন কয়েকজন বন্ধুকে।

খান বাঁচালো কারলটের জীবন

কুকুর

খান নামের একটি কুকুর কারলট নামের একটি ১৭ বছর বয়সী শিশুকে বিষাক্ত সাপের কামড় থেকে বাঁচায়।

মজার বিষয় খান মাত্র ৭ দিন আগেই ওদের বাসায় আসে। খানকে দত্তক নেয়া হয়।

ছোট্ট কারলটকে যখন সাপটি কামড় দিতে যাবে ঠিক সেই মুহূর্তে খান ওকে ধাক্কা দেয়। আর বিষধর সাপের কামড় লাগে খানের গায়।

বলে রাখা ভালো সাপটি ছিল কিং কোবরা। মন খারাপ করবেন না। খান বেঁচে যায়। তাকে এন্টি-ভেনম দেয়া হয়।

টাটরটট বাঁচালো মৃত্যুপথযাত্রীর জীবন

কুকুর

এখন যে কুকুররের কথা বলবো ওর নাম টাটরটট। পেটনের মা ক্রিস্টি পরিকল্পনা করলেন টাটরটটকে কিছুদিনের জন্য লালন পালন করবেন।

কয়েক সপ্তাহ পর খেয়াল করলেন যে কুকুরটি তার পরিবারের সাথে অনেক সুন্দর সখ্যতা করে ফেলেছে।

একদিন ক্রিস্টি পেটনকে ঘুম পাড়িয়ে অন্য রুমে বসে ছিল। ১/২ ঘণ্টা পর হঠাৎ করে টাটরটট পেটনের রুমের আশেপাশে দৌড়ানো শুরু করল এবং চিৎকার দিতে লাগলো। ক্রিস্টি কোনভাবেই ওকে থামাতে পারল না, যতক্ষণ না ও পেটনের কাছে গেলো। গিয়ে দেখল পেটন খুব ধীরে শ্বাস নিচ্ছে। দ্রুত হাসপাতালে নেয়ার পর ডাক্তার বলল পেটনের রক্তে সুগারের মাত্রা এতো বেশী কমে গিয়েছিলো যে ও মারা যেতে পারতো। টাটরটট ক্রিস্টির সবচেয়ে ভালো বন্ধু হয়ে গেলো। ক্রিস্টি বলে, এই কুকুর না থাকলে তার সন্তান হয়তো জীবিত থাকতো না।

কুকুর বাঁচালো সুনামি থেকে

কুকুর

বাবু নামের ১২ বছরের এক শিহতজু কুকুর তার ৮৩ বছরের মালিককে সুনামির হাত থেকে বাঁচায়। এটা এক অবিস্মরণীয় ঘটনা।

হঠাৎ একদিন বাবু তার মালিককে বাইরে নেয়ার জন্য পাগল হয়ে যায়। এমনিতে বাবু বাইরে যেতে বা হাঁটতে পছন্দ করে না।

কিন্তু সেদিন ও তার মালিককে পাহাড়ে পর্যন্ত জোর করে উঠিয়ে নেয়। ওর মালিক যখন পাহাড় থেকে নিচের দিকে তাকায় তখন দেখে সুনামি এসে তার বাড়ি ভাসিয়ে নিয়ে গেছে।

তার পোষা কুকুর বন্ধুটির জন্য বেঁচে গেলেন তিনি।

কুকুর মনিবের জীবন বাঁচাতে গিয়ে গুলি খেল

কুকুর

কাইলো নামের ১২ বছরের পিটবুল কুকুর। তার মনিবের বাসায় ডাকাত আসে। কাইলো তার মনিবকে বাঁচাতে ডাকাতদের উপর আক্রমণ করে।

ডাকাতরা পালিয়ে যাওয়ার সময় কাইলো ওদের পিছু নেয় তখন ওদের কেউ একজন কাইলোর মাথায় গুলি করে।

অলৌকিক ভাবে কাইলোর মাথায় গুলি লাগলেও তা ঘাড়ের পাশ দিয়ে বের হয়ে যায়। ওর মালিক দ্রুত ওকে হাসপাতাল নেয়।

এবং সৃষ্টিকর্তার দয়ায় কাইলো ৩ দিনের মধ্যে হাঁটতে সক্ষম হয়।

ক্যাটরিনা হ্যারিকেন থেকে বাঁচালো মানুষের জীবন

কুকুর

ক্যাটরিনা নামের কালো লেব্রেডর কুকুর হ্যারিকেনে এক মানুষকে ভেসে যেতে দেখল। মানুষটি ডুবে যাওয়ার আগে তাকে টেনে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায় ক্যাটরিনা। ধীরে ধীরে পানি বাড়তে থাকে। ক্যাটরিনা ততক্ষণ চিৎকার করতে থাকে যতক্ষণ না কোন উদ্ধার কর্মীর দল আসে।

জোজো বাঁচিয়েছে নুমুকে

জোজো নামের একটি বাংলাদেশী কুকুর তার মালিককে গ্যাস বিস্ফোরণের হাত থেকে বাঁচায়। বুদ্ধিমান জোজো সবসময় তাঁর মালিকের সাথেই থাকে। একদিন সকালে ঘুম থেকে উঠার পর নুমু (জোজোর মালিক) যখন জোজোর কাছে যায় তখন জোজো তাকে রান্না ঘরে নিয়ে যায়। নুমু রান্না ঘরে গিয়ে আবিষ্কার করেন গ্যাসের চুলা অন করা। শুধু একটি ম্যাচের কাঠি জ্বললেই সেদিন উড়ে যেতো পুরো বাড়ি। জোজোর এতো বড় উপকারে অনেক অনেক কৃতজ্ঞ নুমু। প্রথম ছবিটি জোজো আর নুমুর।

অপেক্ষা

অপেক্ষা

চুল বাঁধাটা মনের মতো হচ্ছে না বলে আবার বেণী খুলে ফেললো তিথি। স্কুলে যেতে দেরী হচ্ছে দেখে নদী চলে এসেছে। নদী তিথির সবচেয়ে কাছের বান্ধবী।

আজও তোর জন্য দেরী হবে রে তিথি।

আর একটু বস চুলটা বাঁধা হলেই চলে যাবো।

তুই কি ভাত খেয়েছিস?

না, এসে খাবো।

ধ্যাত। তুই রেডি হ। আমি নিয়ে আসি তোর খাবার। খাইয়ে দিলে খাবি তো?

যা যা নিয়ে আয়।

এভাবেই চলছিল তিথির দিন কাল। বয়স ১৪/১৫। কয়েক মাস পর এসএসসি পরীক্ষা শুরু তাই এখন নিয়মিত স্কুলে ক্লাস করে। নদী নামের মেয়েটা ওর সবচেয়ে ভালো বন্ধু। নিজের মনের সব কথাই ও নদীর সাথে শেয়ার করে। কালো দেখতে তিথি নামের মেয়েটি পড়াশোনা আর পরিবার-বন্ধু মহল ছাড়া কাউকে নিয়ে কখন চিন্তা করেনি। যদিও ওর বিয়ের জন্য অনেকগুলো প্রস্তাব এসেছিল কিন্তু ও এখন পড়াশোনা নিয়ে কিছু ভাবতে চায় না। ডাক্তার হওয়ার খুব শখ তিথির।

বান্ধবীর সাথে সব সময় হেঁটেই স্কুলে যাতায়াত করে। আজও তাই করল।

তিথি ঐ ছেলেটাকে পরিচিত লাগছে না?

আরে ও তো আমাকে আগে কয়েকবার চিঠি দিয়েছিল। ভুলে গেছিস?

ওহ এটা শফিক ভাই? কিশোরগঞ্জ থেকে রাজশাহী আসে এই লোকটা! শুধু একবার তোকে চোখের সামনে দেখার জন্য এতো দূরে আসেন। ভাবতেই অবাক লাগে রে।

ধুর বাদ দে। ছেলেরা এমন করে। এখন এগুলো পাত্তা দিতে পারবো না। লোকটার দিকে তাকাস না প্লিজ।

শফিক বাইশ/তেইশ বছরের এক টগবগে যুবক। চাকরীর সুবাদে তিথির বাবা কিশোরগঞ্জে গিয়েছিলেন। বাবার জন্য তিথিরও যেতে হয়েছে। তখন থেকেই তিথিকে পছন্দ করে শফিক। তিথি কোন কথার উত্তর দেয় না। তবুও চেষ্টার ত্রুটি নেই ওর। শফিক দেখতে অনেক সুন্দর। নায়ক বললেও কম হবে। হাজার হাজার সুন্দরীরা তার আশেপাশে ঘোরে। কিন্তু তার মনে এই কালো হরিণের কালো চোখ ছাড়া আর কিছুই নেই। তাই তো বার বার ছুটে চলে আসে। তিথিরা এখন রাজশাহী থাকে। শফিকের মন একটু উড়ু উড়ু। তাই পড়াশোনাটা শেষ করা হয়নি। অনেক কষ্টে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। পাশও করেছে ভালো ভাবে। জানে না শফিক কিসের টানে আজও সে তিথির পেছন পেছন ঘোরে। কখনই কি ওর চিঠির জবাব দেবে না তিথি? ভাবতে ভাবতে ওর সামনে চলে আসলো শফিক। আজও ওর হাতে একটা চিঠি।

আপনি আবার কেন এসেছেন? কি চান আপনি?

আমার চিঠিগুলোর জবাব দিলে না তো। কিছুই তো বললে না তুমি। এই চিঠিটা পড়ে আমাকে অবশ্যই উত্তর দিবে।

অনেক সুন্দর লাগছে আজ শফিককে। তিথি না তাকিয়ে পারল না। সত্যি এতো সুন্দর ছেলে সে আগে কখন দেখেনি। মনের বরফ গলে যাবে মনে হচ্ছে তিথির।

আমি আসি তিথি। সামনের সপ্তাহে আবার এই বান্দা তোমার সামনে হাজির হবে।

না চাইতেও হেসে দিল তিথি। সাথে নদীও। এতক্ষণে নদী মুখ খুলল।

শফিক ভাইয়া অবশ্যই আসবেন। আর এই পাজি মেয়ে না আসলে আমি ওকে আপনার কাছে নিয়ে আসব।

তিনজন একসাথে হেসে উঠল। যদিও তিথি ওর হাসিটা লুকানোর চেষ্টা করল।

স্কুল শেষে বাড়ির পথ ধরে আসার সময় সত্যিই বুকটা কেমন করে উঠল শফিকের জন্য। কখন এভাবে ভেবে দেখেনি তিথি। ওর মতো একটা মেয়ে শফিকের কাছে কিছুই না। ইচ্ছে করলেই শফিক অনেক সুন্দরী মেয়ের সাথে প্রেম করতে পারে। তবুও কিসের টানে শফিক ওকে দেখতে আসে?

বাড়িতে ঢুকেই শুনতে পেলো বড় ভাইয়ের চিৎকার চেঁচামেচি। মনটা সাথে সাথে বিষিয়ে গেলো তিথির। কিছুক্ষণ আগে ভালই তো ছিল ও নদীর সাথে। ভালো লাগে না এই বাড়িতে থাকতে। হঠাৎ করে সামনে চলে এলো তিথির বড় ভাই মামুন। খুব রাগী লোক। পান থেকে চুন খসলে গায়ে হাত তুলতে দ্বিধা করেন না তিনি।

তিথি তুই স্কুলে যাওয়ার সময় কার সাথে কথা বলছিলি?

তিথি অনেক বেশি ভয় পেয়ে গেলেও কিছু বলল না।

কি তুই চুপ করে আছিস কেন? কি ভাবিস তুই আমার কানে কোন কথা আসে না? শফিকের সাথে তোর কিসের সম্পর্ক? এতো কিসের হাসাহাসি রাস্তায়?

ভাইয়া আমি কিছু করিনি।

তাহলে ওই ছেলে বার বার আসে কেন এখানে? কি চায় ওই ধূর্ত ছেলে? ও কেমন ছেলে তুই কি কিছু জানিস?

ভাইয়া সে খারাপ লোক না।

তিথির বলতে দেরী কিন্তু ওর ভাইয়ের চড় দিতে দেরী হল না।

এত্ত বড় সাহস তোর? তুই আমার সাথে তর্ক করিস? তোর জন্য বিয়ের সম্বন্ধ এসেছে। ওরা যদি দেখে ফেলত কি ভাবত তাহলে।

রাগের চোটে খুব খারাপ অবস্থা হয়ে গেলো তিথির। রাগের বসে মানুষ অনেক কথাই বলে। তিথি মনের গোপনে রাখা কথাটা বলে ফেললো।

ভাইয়া আমি যদি জীবনে কাউকে বিয়ে করি তাহলে সেটা শফিক। আমি ওকে ভালোবাসি।

তোর কি মাথার ঠিক আছে? তুই কোনদিন ওর সাথে ভালো থাকবি না। ও ভালো মানুষ না।

চুপ করে দাঁড়িয়ে আছে তিথি। এবার যে চিঠিটা দিয়েছিল সেটার কথা গুলো মাথায় ঘুরছে ওর।

“ তিথি আমাকে তুমি ভালোবাসো আর নাই বাসো আমি তোমাকে সারা জীবন এভাবেই ভালোবেসে যাবো। তুমি আমাকে ভয় পেয়ো না। আমি জানি তোমার পড়াশোনার অনেক ইচ্ছে। তুমি যদি আমাকে বিয়ে করো তাহলে নিজের রক্ত বিক্রি করে হলেও তোমাকে পড়াশোনা করাবো। অনেক ভালোবাসা নিয়ো। আমাকে একটা হলেও চিঠির জবাব দিয়ো ”

এতো চিৎকার চেঁচামেচির মধ্যেও ওর কথা মনে পড়ে গেলো তিথির। ভাইয়ের কথায় আবার বাস্তবে ফিরে এলো।

কি হল কি ভাবছিস?

বিয়ে করলে আমি ঐ ছেলেকেই বিয়ে করবো।

এসএসসি পরিক্ষার পর দেখতে দেখতে ওর সাথে বিয়ে হয়ে গেলো শফিকের সাথে। হাজার রঙিন স্বপ্ন দেখতে লাগলো তিথি। ধুমধাম করেই বিয়ে হয়ে গেলো ওদের। যদিও বড় ভাইয়ের সম্মতি ছিল না।

শ্বশুর বাড়ীর সবাই অনেক ভালো। স্বামী হিসেবে শফিককে পেয়ে তিথি অনেক বেশী ধন্য। এমন সুন্দর চেহারার ছেলে, ব্যবহার, কথা আর কণ্ঠ এতো সুন্দর। তিথি মুখে যাই বলুক না কেন। ও কিন্তু অনেক বেশী সুন্দরের পূজারী। বিয়ে করে শফিক ওকে কিশোরগঞ্জ নিয়ে এলো। অনেক আত্মীয়স্বজন ছিল শফিকের সাথে। এখন বউকে মায়ের কাছে নিয়ে যাবে।

আম্মা তোমার বউকে দেখ।

তিথি অনেক বুদ্ধিমতী কারো কোন কথার অপেক্ষা না করে টুক করে শাশুড়ির পা ধরে সালাম করে নিলো। কিন্তু খুব স্পষ্ট বোঝা গেলো তিনি তিথিকে মোটেও পছন্দ করেননি। মনটাই খারাপ হয়ে গেল তিথির।

তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়েই শুরু হল তিথির নতুন জীবন। অনেক ভালোবাসা পেলো স্বামীর থেকে। অনেক ভালো শফিক। কিন্তু কয়েকমাস পর দেখল শফিক একদম বাড়ির বাইরে যায় না। আগের মতো ঘুরতে নেয় না। কোন কাজও করে না। শুধু বাসায় বসে থাকে। জিজ্ঞেস করলে বলল,

“আমার কাছে টাকা নেই। কি করবো বাইরে গিয়ে? তুমি কি পারবে আমাকে টাকা দিতে?”

জানে না কি করে এনে দেবে টাকা তবুও বলল,

“আমি এনে দেবো তোমাকে তুমি কি তাহলে স্বাভাবিক ভাবে চলবে? কিছু একটা তো করো।”

“ঠিক আছে তাহলে আমাকে এনে দাও।”

পরের দিন বাড়ীতে চলে গেলো তিথি। বাবার কাছ থেকে টাকা নিয়ে আসলো। ২ দিনের মাথায় শফিক টাকা হাতে পেলো। কত যে খুশি হল শফিক। অনেক বেশি ভালো লাগছে এখন তিথির। সব সমস্যার যেন অবকাশ ঘটল। কিন্তু সে সুখ বেশি দিন সইল না ওর কপালে। জুয়া খেলে সব টাকা হেরে রাগে গজ গজ করতে করতে আবার বাড়িতে বসে রইলো। এভাবেই চলতে লাগলো দিনকাল স্বামীর ঘরে।

একটা লোক এলো সেদিন তিথিকে দেখতে। বলল,

“শফিক নতুন বউকে নিয়ে ঘুরতে বের হও না কেন?”

শফিকের উত্তর শুনে সেদিন মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ল তিথির।

“আরে ভাই কালো বউকে নিয়ে কি এতো ঘুরাঘুরি করা যায়।”

খুব কষ্ট পেলেও চুপ করে ছিল সেদিন। সেদিন ভালোবাসা কমার কথা থাকলেও কমাতে পারেনি তিথি।

এদিকে শফিক বেকার থাকে বলে সংসারের যাবতীয় কাজ তিথিকে করতে হয়। এক কথায় কাজের বুয়ার সব কাজ। এখানে সবাই একান্নবর্তী পরিবারে থাকে। সুতরাং কিছু না কিছু সবাই দেয় সংসারে শফিক ছাড়া। এতো দিনে অনেক ভয়ঙ্কর একটা জিনিস দেখল তিথি। খুব বদ মেজাজি লোক শফিক। অনেক সময় রাগ হলে হাত উঠে যায় ওর। তিথি বাথরুমে গিয়ে কাঁদে। কাউকে ওর মনের দুঃখের কথা বলে না। মানুষের যে এতো রূপ থাকতে পারে তা ও কখন বিশ্বাস করতে পারে না। ওর ননদ, ননাস, শাশুড়ির সামনেও অনেক সময় অপমান করে কথা বলে ফেলে শফিক।

অনেক সদস্য পরিবারে তাই অনেক রান্না হয়। শাশুড়ি সবাইকে বেড়ে দেন। সবার খাবার শেষ হলে অল্প একটু তরকারি আর ভাঙা মাছ থাকে ওর জন্য। খুব অবাক লাগে তিথির যখন বাড়িতে ছিল তখন ওর মা থালা ভরে তরকারি দিতো আর ও না খেয়ে স্কুলে যেতো। তিথি কিচ্ছু বলে না। অনেক বেশি ভালোবাসে ও শফিককে কোথাও যাবে না ও ওকে ছেড়ে। যত কষ্টই হোক। বড় ভাইয়ের কথা মিথ্যা প্রমাণ করে ছাড়বে।

বিয়ের বছর ঘুরতে না ঘুরতেই গর্ভবতী হয়ে গেলো তিথি। অদ্ভুত এক অনুভূতি। অনেক বেশী লাজুক তিথি, তাই সে কারো সামনেও যেতে চায় না এখন। শফিক তো মহা খুশি, ভালো ভাবেই যত্ন নেয় মেয়েটার। অনেক কিছু কিনে দেয় ওকে। কিন্তু মায়ের কাছে যেতে ইচ্ছে করছে। চলে গেলো রাজশাহী  কিছুদিন পরই। অল্প বয়সের কারণে তিথির নানান সমস্যা দেখা দিল। ১০ মাস পরই প্রসব ব্যথা উঠলো মেয়েটার। হাসপাতালে নেয়ার পর ডাক্তার বলল হয় মাকে না হয় বাচ্চাকে বাঁচাতে পারবো। শফিক বলল যে করেই হোক তিথিকে বাঁচান। তিথি বেঁচে গেলেও বাচ্চাটাকে বাঁচানো গেলো না। পাগল প্রায় অবস্থা হল ওর। অনেক বেশি সুন্দর হয়েছিল ছেলেটা। বাচ্চা দেখলেও ভয় পেত ও। কেঁদে ফেলত নিজের অজান্তে। এই সময়টাতে সম্পূর্ণ ভাবে মানসিক সাহায্য দিয়েছে শফিক। অনেক ভালোবাসা দিয়ে ওকে ভোলানোর চেষ্টা করেছে। বলেছে যদি আমাদের কখনো আর বাচ্চা নাও হয় আমার কোন সমস্যা নেই। তুমি শুধু ভালো থেকো তিথি। আমার আর কিছু চাই না। ডাক্তারের পরামর্শে ২ বছর পর একটা টুকটুকে মেয়ে বাবু হল তিথির। চিনির মতো সাদা একটা মেয়ে হল ওর। নাম দিল তুয়া।

দেখতে দেখতে তুয়া বড় হতে লাগলো। শফিক এখন ভালই উপার্জন করে। ভালই আছে পরিবারটা। যখন ও ভালো অনেক ভালো কিন্তু যখন খারাপ তখন এতো বেশি খারাপ ব্যবহার করে যে কোন মানুষ ওর সাথে থাকবে না। তবুও আছে তিথি। তিথির সৌন্দর্য যেন আগের থেকে আরও বেশি বেড়ে গেছে। যদি ও চায় তাহলে অন্য একজনের সাথে ওর বাবা মা বিয়ে দিয়ে দিবে। কারণ উনারা জানেন শফিক খুব একটা সুখে রাখেনি তিথিকে। কিন্তু তিথির পক্ষে এ যে অসম্ভব।

মেয়ের পর একটা ছেলে হল তিথির। অনেক মায়াবী চেহারা ওর। শফিক আজ ভালো হলে কাল খারাপ থাকে। আজ উপার্জন করলে কাল করে না। খুব অশান্তিতে আছে ও। কিন্তু কখনো ছাড়ার কথা ভাবতে পারে না। অপেক্ষায় আছে কবে লোকটা ওর ভালোবাসা বুঝতে পারবে।

অদ্ভুত ব্যপার ওদের বিয়ে হয়ে ছিল ১৪ই ফেব্রুয়ারি, ভালোবাসা দিবসে। কোন পরিকল্পনা ছিল না। এমনিতেই মিলে গেছে। আজও তেমন একটি ১৪ তারিখ এসেছে। ছেলেমেয়েরা বড় হয়েছে। সংসারও চলছে, শফিক আজও তেমনই আছে। কোন পরিবর্তন আসেনি ওর ভেতর। তিথিও পরিবর্তন করতে পারেনি নিজেকে। এখনো পাগলের মতো ভালবাসে লোকটা। অপেক্ষায় আছে কোনদিন হয়তো বুঝতে পারবে ও কতটুকু ভালবাসে শফিককে। এই লোক ছাড়া ওর পৃথিবীতে আর কিছুই নেই। যে যাই বলুক, এই রাজপুত্রের জন্য ও আজও সব করতে পারে।

শফিকরা কি কখনো ভালো হবে। বুঝতে পারবে তিথিদের মনের কথা???

অপেক্ষায় রইল তিথি, অপেক্ষায় রইলো সবাই।

কুকুর পাললে আপনার জীবনে আসবে অবিশ্বাস্য পরিবর্তন

কুকুর

আমাদের দেশে বেশির ভাগ পরিবারে কুকুর পোষাটা গ্রহণযোগ্য নয়। সিংহ ভাগ মানুষ কুকুর পালতে নারাজ। অনেকের এই প্রাণিটির প্রতি এক ধরনের ভয়ও কাজ করে। বাচ্চাদের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে এই কুকুর কিন্তু রাখতে পারে বিশেষ ভূমিকা। শুধু বাচ্চাদের জন্য নয় সব বয়সী মানুষদের জন্য এই প্রাণী অনেক ভালো একটি সঙ্গী।

কুকুর জড়তা দূর করে

মানসিক চাপের জন্য আমাদের মন খারাপ থাকে। অবসাদ নামে জীবনে। অনেকের জীবনে হতাশার কারণে হীনমন্যতায় ভোগে।

কুকুর

কিন্তু যদি কোন প্রাণী আপনার চারপাশে লেজ নাড়িয়ে আপনার আদর পাওয়ার জন্য ঘোরে তাহলে আপনি কি আর মন খারাপ করে থাকতে পারবেন?

পোষা প্রাণীর সঙ্গে খেলা করলে আমাদের মস্তিষ্কে অক্সিটোসিন নামের এক হরমোন নিঃসৃত হয়, যা মানসিক চাপ কমিয়ে আন্তরিক হতে সাহায্য করে।

সাম্প্রতিক সময়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোলের এক গবেষণায় দেখা গেছে, ছোটবেলায় বাচ্চাদের মধ্যে যে জড়তা তাকে তা পোষা কুকুর দূর করতে পারে।

কুকুর ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়

প্রথমে আপনি হয়তো হয়তো বিশ্বাস করবেন না। কিন্তু গবেষণায় বের হয়েছে যে কুকুর তার মালিকের স্বাস্থ্যের অসঙ্গতি লক্ষ্য করে।

সে তখন মালিকের শরীরের সেই অংশে বারবার চাটতে থাকে। এমন হলে জলদি ডাক্তারের শরণাপন্ন হন।

হতে পারে শরীরের সেই জায়গায় ক্যান্সার সেল জন্ম নিতে শুরু করেছে।

হাঁপানি হতে পারেনা

সুইডেনের এক গবেষণায় পাওয়া গেছে, নবজাতক শিশু যদি প্রথম এক বছর পোষা কুকুরের সঙ্গে বেড়ে ওঠে তাহলে তার শরীরে হাঁপানি রোগের প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়।

বয়স ছয় হতে হতে হাঁপানির ঝুঁকি কমে যায় অনেকটাই।

ফুসফুস জনিত যেকোনো রোগের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

যদি বাচ্চার আগে থেকেই অ্যালার্জি কিংবা হাঁপানি থাকেলে লোমশ কিছু না পোষাই ভাল।

শিশুকে দায়িত্বশীল করে তোলে

কুকুর

দায়িত্বশীলতা, কর্তব্যপরায়ণ হিসেবে গড়ে তোলার সময় শিশু সময়েই।

বাড়িতে প্রাণী পোষা কিন্তু অনেক বেশি দায়িত্বশীলতার প্রমাণ দেয়।

বাবা মার দেখা দেখি বাসার পোষা প্রাণীটির প্রতি সেও যত্নশীল হতে শুরু করে।

কিভাবে বন্ধু বানাতে হয় শিখে যায়। চারপেয়ে এই বন্ধুর বদৌলতে ছোটবেলা থেকে আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠেন অনেকেই।

অতিরিক্ত কোলেস্টেরল কমিয়ে দেয়

কুকুর

বেশ কিছু স্টাডিতে দেখা গেছে এই প্রাণীর শরীরে থাকা বেশ কিছু উপকারি ব্যাকটেরিয়া আমাদের শরীরে প্রবেশ করার পর এমন খেল দেখায় যে একদিকে যেমন ট্রাইগ্লিসারাইড এবং খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমতে শুরু করে, তেমনি শরীরের অন্দরের ক্ষমতাও মারাত্মক বৃদ্ধি পায়।

ফলে স্বাভাবিকভাবেই সুস্থ জীবনের স্বপ্ন পূরণ হতে সময় লাগে না।

হার্ট ভালো থাকে

কুকুর

যেমনটা একেবারে শুরুতেই আলোচনা করা হয়েছে যে হার্টের কর্মক্ষমতা বাড়ার সঙ্গে কুকুর পোষার সরাসরি যোগ রয়েছে।

আসলে পোষ্যের সান্নিধ্যে থাকলে শারীরিক সচলচা এতটা বেড়ে যায় যে স্বাভাবিকভাবেই হার্টের কর্মক্ষমতা বাড়তে শুরু করে।

সেই সঙ্গে হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কাও চোখে পরার মতো কমে যায়।

বলা হয়নি তোমাকে অনেক ভালোবাসি মা

মা

আমি আইজ মির্জা একটা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এ অধ্যয়নরত। আমার এতো দূর আসতে অনেক ঝড়, বাধা, সংগ্রাম পার করতে হয়েছে। একটা জীবনের প্রতিটা সময়ের হিসাব কিভাবে কষতে হয় তা আমি জানি বা আমার মত যারা তারাই কেবল জানে। জীবনের প্রতি পদক্ষেপে পা রাখার জন্য চিন্তা করতে হতো এবার না আমাকে আবার পিছলে পরতে হয়। জীবন মানে হলো লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য দৌড়ানো। যদি হোঁচট খেয়ে পড়ে যান তবে যেখান থেকে হোঁচট খেয়ে পড়ছেন সেখান থেকে শিক্ষা নিয়ে আবার দৌড় শুরু করা। যাই হোক এভাবে জীবনের অনেকটা পথা পাড়ি দিয়েছি হয়তো বা আরো দিতে হবে।

যখন খুব ছোট ছিলাম বোঝার মত বয়স হয়নি তখন জীবনের দু’টি মূল্যবান জিনিসের মধ্যে একটি হারাতে হয়। ঐ সময় বুঝতে পারিনি হারানোর ব্যাথা এবং কি হারালাম তার মর্যাদা।

মা
মা বাবা একটি সুখী পরিবারের দুটি প্রাণ।

ধীরে ধীরে যখন বুঝতে শুরু করি তখন টের পেতে থাকি ঐ মানুষটার অভাব। কিন্তু তখন পুরোপুরি বুঝতে দেয়নি আমার মা। তিনি একাধারে বাবা-মা দুজনের দায়িত্ব পালন করতেন। সারাদিন কাজের ব্যস্ততার মাঝে থেকেও আমাকে আমার বাবার অভাব অনুভব করতে দেননি। আমি এমন ছিলাম যে আমার মাকে না দেখলে মনে হতো আমি কোথায় আছি এখন?

মা
মা ছাড়া আমার পৃথিবী অন্ধকার।

মাকে ছাড়া পুরো পৃথিবীতে অন্ধকার নেমে আসতো। এক মুহূর্তের জন্যও ভাবতে পারতাম না উনাকে ছাড়া আমি থাকবো। এতোটাই স্বার্থপরতা কাজ করতো আমার ভিতর। এভাবে বাড়তে পারতো আমার বয়স আরো কতশত দিন কাটাতে পারতাম আমার মা জননীর সাথে। কিন্তু সেটাও বেশী দিন স্থায়ী হলো না। বাবা চলে যাওয়ার মাত্র দেড় বছর পর কোন এক অজানা কারণে জীবন থেকে হারিয়ে যায় আমার সেই মমতাময়ী মা। আমাকে এতো ভালোবাসতো কিন্তু যাওয়ার সময় একবারের জন্যও বলে যায়নি বাবা আমি চলে যাচ্ছি তুই নিজের খেয়াল রাখিস, যত্ন নিস, সময় মত খাবার খেয়ে নিস, বেশী দুষ্টামি করিস না, সন্ধ্যার আগে বাসায় ফিরে আসবি, ঠিক মত পড়াশুনা করবি। আমি দূর থেকে তোর ভালো থাকা দেখে শান্তি পাবো। একবারো ভাবেনি আমার বুকের মানিকটা কিভাবে একা একা নিজের জীবনটা গুছিয়ে নিবে, পারবে তো আমার মানিকটা??!!

মা
যার মা নেই সে সব সুখ থেকে বঞ্চিত।

হয়তো উনার ভালো থাকাটা অনেক বেশী গুরুত্বপূর্ণ ছিলো আমার ভালো থাকার চেয়ে। কত যায়গায় যেতাম অনেক খুঁজেছি প্রতিদিন ভাবতাম আজ হয়তো আমার মা আমাকে দেখতে চলে আসবে আমিও উনাকে আবার দেখতে পাবো। কিন্তু দেখা আর হয়ে উঠলো না। রাস্তা যখন হাঁটতাম তখন সবার মায়ের মুখে তাকিয়ে থাকতাম উনাদের মাঝে মাকে খুঁজে বেড়াতাম। সবার মা যখন রাতে দুধের গ্লাস নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে বাবা পুরোটা খেয়ে নে, না হয় তুই পড়ালেখায় মন দিতে পারবি না আর তখন আমার রাতের খাবারে পেট ভরেছে কিনা তা জানার মত কেউ ছিলো না। সকালে সবার মা নাস্তা নিয়ে রেডি আর চিন্তা করে আমার ছেলে কিভাবে না খেয়ে পড়াশুনা করবে সারাদিন বাহিরে থাকবে, কি না কি খাবে এসব নিয়ে চিন্তায় ব্যস্ত তখন আমার ঘুম ভাঙ্গিয়ে দিয়ে স্কুলে পাঠানোর মত কেউ ছিলো না। একটা সন্তান তার সব কিছু মায়ের কাছে কোন সমস্যা ছাড়াই বলতে পারে দুঃখ ভাগ করে নিতে পারে। কিন্তু কোন কারণে যদি আমার মন খারাপ হতো কারো কাছে বলার মত মানুষ ছিলো না। তখন হয়তো কোন দুষ্টামি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে যেতাম আর সব ভুলে যেতাম। তাই সব কিছু ভিতরে রাখতে রাখতে আর হালকা হয়ে উঠা হয়নি অনেক বেশী গম্ভীর হতে থাকি।

মা
দুঃখগুলো কেউ বুঝবে না মা ছাড়া।

এভাবে চলতে থাকলো জীবন। আমারও বয়স বাড়তে থাকে একা একা হীনমানসিকতা আমাকে ঘিরে ধরে। একটা মানুষ অনেক কিছু শিক্ষা গ্রহণ করে তার পরিবার থেকে আর পরিবারের প্রধান শিক্ষক হলো মা কারণ বাবা তার পেশা নিয়েই পড়ে থাকে খুব বেশী সময় দিতে পারে না কিন্তু মা তার পরিবারকে ধরে রাখে সন্তান কে সঠিক পথ প্রদর্শন করে। যখন একটা মানুষ তার দুই অংশ থেকে বিতাড়িত বা বঞ্চিত হয় তখন নিজেকে সামলে নিতে অনেক কষ্টকর হয়ে পড়ে। এখান থেকে অনেকে কেটে উঠতে পারে আবার অনেকে ঝরে পড়ে। এভাবে হারানোর ভয়টা বাড়তে থাকে আর বাড়তে বাড়তে এমন হয়ে গেছে যে আমি আমার জীবনে প্রতিটা মানুষকে হারানোর ভয় কাজ করে। আর ভয়টাই আমার হারানোর আরকেটা কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমি আমার মাকে অনেক বেশী ভালোবাসি যার জন্য আমি পাগল ছিলাম আর সেই ভালোবাসা শুধু ভিতরেই রেখে দিয়েছি প্রকাশ করতে পারিনি।

মা খুবী ছোট একটা শব্দ কিন্তু এই ছোট শব্দের টানটা নাড়ী থেকে উৎপন্ন হয়। “মা” আওয়াজটি কানে প্রবেশ করলেই যেনো মনের ভিতরে মায়া ভালোবাসার মাত্রা অসম্ভব ভাবে বেড়ে যায়। এর ভার এতই বেশী যে অন্য কোন মানুষের তা বইবার সামর্থ্য নেই এবং সে ক্ষমতা অন্য কাউকে দেওয়াও হয় নি। মায়েদের কোন জাতে ভাগ করা যায় না “মা মানেই মা”। একজন মা তার সন্তানকে মমতা আর ভালোবাসার রক্ষাকারী দেওয়ালের মত সব সময় ঘিরে রাখে যাতে বাহ্যিক কোন আঘাত তার সন্তানের উপর হানা দিতে না পারে।

মা
মা চান তাঁর সন্তান সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় থাকবে।

আপনি যখন অন্যায় বা ভুল পথে পা বাড়াবেন তখন আপনার কাছের মানুষ গুলো একবার, দুইবার, তিনবার বা তার চেয়ে বেশী বার পথ দেখাবে কিন্তু এক সময় তারা সহ্য না করতে পেরে আপনার উপর রাগ করে আপনাকে ছেড়ে চলে যাবে। অন্য দিকে দয়ার সাগর “মা” আপনাকে তার শেষ নিঃশ্বাস থাকা পর্যন্ত আপনার সব কিছু কে সামলে রেখে আপনার পাশে থেকে যাবে আর আল্লাহ্‌র কাছে কাঁদতে থাকবে আপনার জন্য। কোথাও খুঁজে পাবেন না এমন মানুষ শত হাহাকার করলেও পাওয়া যাবে না। যদি পৃথিবীতে নিঃস্বার্থ ভালো কেউ বেসে থাকে তিনি হলেন মা জননী। অনেক কনকনে শীতের রাতেও আপনার ভেজা কাঁথাটি নিজে গায়ে না দিয়ে নিজের গরম কাঁথাটি আপনার গায়ে দিয়ে দিতেন, তিনিই হলেন সে দরদী মা যিনি নিজের আরামের কথা চিন্তা না করে তার আদরের মানিকটা কে যত্নে রাখতেন। একমাত্র একজন মানুষ এই ধরার বুকে আপনাকে ঠকাবে না তিনি আর কেউ নয় মা। কারণ মা আপনাকে তিলে তিলে নিজে কোটি বার কষ্ট সহ্য করে আপনাকে পৃথিবীতে নিয়ে এসেছেন, আর যাই হয়ে যাক সে মা আপনার প্রতি তার মায়ার দেয়াল ভাঙতে দিবে না।
মাকে কোথাও হারাতে দিবেন না। কারণ হারালেই বুঝবেন মা কেমন জিনিস। সে আপনাকে যেভাবে যত্ন করে মানুষ করেছে ঠিক সেভাবে তাকে যত্ন করে ধরে রাখবেন। মায়ের ভালোবাসা পেতে যেমন আনন্দ লাগে দেখবেন তাঁকে ভালোবাসা দিলেও মনে শান্তি লাগে। পৃথিবীর সব মাকে শ্রদ্ধা জানাই।

বাবা (যন্ত্র মানব) বা জনক, সকল সুখের মূল যিনি

বাবা

আজ আমার পরীক্ষা ছিলো তাই গতকাল রাতে একটু বেশি ব্যস্ত ছিলাম তাই পড়া শেষ করে তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়লাম যাতে সকালে ঘুম থেকে উঠতে ক্লান্তি না লাগে। অনেক ঘুমের চাপে কখন যে ঘুমিয়ে পড়লাম শান্তির নিদ্রায়। হঠাৎ ঘুম ভাঙ্গলো ফজরের সময় হয়ে গেলো চারদিকে আযানের ধ্বনি শোনা যাচ্ছে। আযানের ধ্বনি আমার কানে না, মনে হচ্ছিলো আমার বুকে আঘাত করছে। বুকটা তখন কাঁপছিল কেন জানি খুব জোরে কান্না করতে ইচ্ছে করছিলো।

বাবা
ভালো থেকো বাবা যেখানেই থাকো।

এমন অনুভূতির কারণ কয়েকদিন যাবত কিছু ব্যাক্তিগত সমস্যার জন্য দিন গুলো খারাপ যাচ্ছে। জীবন থেকে অনেক মূল্যবান জিনিস হারাতে বসছি সব কিছু মিলিয়ে মন খুব ভার হয়ে আছে। ঘুম ভাঙলে বুক ব্যাথার অনুভব হয়। তাই নিজেকে সময়ের সাথে মানিয়ে চলার চেষ্টা করছি। বাবার কথা মনে পড়ছে খুব। এসময় উনি থাকলে আমাকে অনেক মানসিক সাপোর্ট দিতো। আমি যখন খুব ছোট তখন ফজরের নামাজের সময় আমার বাবা আমাকে ডেকে তার সঙ্গে মসজিদে নিয়ে যেত। খুব আরামের ঘুম তবুও উঠে যেতাম। নামাজ পড়া শেষে মনে হত না আরামের ঘুম ভেঙ্গে উঠা আমার জন্য খারাপ হয়েছে বরং মনে অনেক শান্তি লাগতো। তাই আজ আযানের সূর যখন কানে এলো তখন বিছানায় শুয়ে শুয়ে সেই দিন গুলোর কথা মনে করতে থাকলাম। আর মনে মনে নিজেকে নিজে বলতে থাকলাম আজ যদি সেই মানুষটি থাকতো তাহলে হয়তো উনার মধুর কণ্ঠের ডাক শুনে ঘুম থেকে উঠতে হতো।

বাবা
বাবা এক বিশাল বটবৃক্ষের নাম।

সেই সৌভাগ্য অনেক আগেই হারাতে হয়েছে। খুব অল্প বয়সে আমাকে বাবার শাসন, আদর, স্নেহ ভালোবাসা থেকে বঞ্চিত হতে হয়েছে।

আমি যখন ৩য় শ্রেণিতে পড়ি তখন আমাকে হারাতে হয় বাবা নামের মায়া ভালোবাসায় ঘেরা বটবৃক্ষকে। আমার বাবার সাথে আমার খুব বেশী স্মৃতি নাই।

খুব কম সময়ের জন্য উনাকে কাছে পেয়েছি। যতোটুকু সময়ে পেয়েছি তার মধ্যে মনে পড়ার মত খুব কম স্মৃতি আমার আছে।

শুধু এটা জানি আমারও এমন একজন মানুষ ছিলো যার জন্য এখনো আমার বুকের কোণে খালি খালি লাগে।

স্কুলে যখন সবার বাবা তার ছেলেকে স্কুলে দিয়ে যেত তখন আমি একা একা ব্যাস্ত রাস্তা পার হয়ে স্কুলে প্রবেশ করতাম। আবার যখন স্কুল ছুটি হতো সবার বাবা-মা এসে উনাদের সন্তান কে আদর করে বাসায় নিয়ে যেতো আর আমি অনেক ক্লান্তি নিয়ে বাসায় যেতাম। স্কুলের যেকোন অনুষ্ঠানে প্রত্যেক সন্তানের বাবা উপস্থিত হতো তার সন্তানকে পাশে নিয়ে বসতো আর আমাকে তখন একটা টেবিলের এক কোণে চুপ করে বসে থাকতে হতো।

বাবা
বাবা ছাড়া বড্ড একা আমরা।

এভাবে পার হয়ে যায় স্কুল জীবন। যখন স্কুল জীবন পার হয় কলেজে পা রাখি তখন বাবার অভাবটা আরো বেশী করে বুঝার শুরু করি।

বাবা শুধুই যে ভালোবাসা, আদর, স্নেহে, শাসন করার জন্য তাই নয় বাবা হচ্ছে আর্থিক যোগান দাতা।

কলেজে সবাই প্রতিদিন নতুন নতুন জামা পড়ে আসে আর আমি একই জামা পড়ে পরের দিনেও কলেজে যেতাম।

সবার মাঝে যখন প্রতিযোগিতা দামী ঘড়ি, দামী জামা কাপড়, দামী জুতা কিনার তখন আমি পরের মাসের খাবারের চিন্তা করতাম।

বাবা
বাবার মত কেউ কি আমাদের অভাব গুলো পূরণ করতে পারবে ?

সত্যি বাবা না থাকলে একটা সন্তান কে অনেক কঠিন সময়ের সম্মুখীন হতে হয়।

এখনো স্বপ্ন দেখি এখনো ভাবি যদি আরেকটা বারের জন্য উনাকে পেতাম বুকের সবটা দিয়ে খুব শক্ত করে চেপে জড়িয়ে ধরতাম।

আর বলতাম বাবা তখন তোমার চলে যাওয়াটাই যে শেষ যাওয়া সেটা বোঝার ক্ষমতা তখনও আমার হয়নি।

বাবা সবচেয়ে আপনজন, বাবা মানে নির্ভরতার সিঁড়ি, বাবা মানে প্রখর রোদে ছায়া দেয়া খুব উঁচু বটবৃক্ষ যেখানে ক্লান্ত পরিবার আশ্রয়ের জন্য মাথা গোঁজে।
ভালো ভাবে কথা বলার আগেই সকল শিশুই আধো আধো স্বরে বা-বা বলে ডাকা শুরু করে মায়ের কোলে থেকেই।

সারা দিন ব্যাস্ততার পর কর্মস্থল থেকে বাবা ফিরলে জায়গা করে নেয় তার কোলে। তারপর হাত দিয়ে ইশারা দেয় ঘরের বাইরে নিয়ে যেতে।

ক্লান্ত বাবাও পরম আনন্দে তার সন্তানের ইচ্ছে পূরণ করতে উঠে পড়ে লাগে তখন বাবা ভুলে যায় তার সারাদিনের ক্লান্তির কথা।

সন্তান যখন এক পা দুই পা করে হাঁটি হাঁটি হতে যাচ্ছে তখন বাবার হাত ধরে বাড়ির আঙ্গিনায় হেটে বেড়ায়।

বাবা নিজের কতশত স্বপ্নকে স্বপ্ন রেখে দিয়ে সন্তানকে কতশত নতুন স্বপ্ন সত্যি হওয়ার পথ দেখিয়ে যায়।

এই মানুষটা সারাজীবন শুধু ত্যাগ করেই যায় বিনিময়ে কিছু পাওয়ার আশা না করে।

বাবা নিয়ে এই গানটা সত্যি সব মরে যাওয়া ইচ্ছে কে আবার জাগ্রত করে —

চশমাটা তেমনি আছে, আছে লাঠি ও পাঞ্জাবী তোমার
ইজিচেয়ারটাও আছে, নেই সেখানে অলস দেহ শুধু তোমার
আযানের ধ্বনি আজো শুনি, ভোরে ভাঙ্গাবেনা ঘুম তুমি জানি
শুধু শুনিনা তোমার সেই দরাজ কন্ঠে পড়া পবিত্র কোরআনের বানী…
বাবা কতদিন কতদিন দেখিনা তোমায়,
কেউ বলেনা তোমার মত কোথায় খোকা ওরে বুকে আয়
বাবা কতরাত কতরাত দেখিনা তোমায়,
কেউ বলেনা মানিক কোথায় আমার ওরে বুকে আয়॥

বাবা
তুমি সাথে থাকলে আমার কোন ভয় লাগে না বাবা।

বাবা শব্দটা কানে আসলেই কেমন জানি একটা ভালোবাসার অনুভূতির সাড়া জাগে।

বাবা মানে সাধারণ একজন মানুষ নয় বাবা মানে এক পৃথিবী ত্যাগের প্রতীক। নিজের সুখ কে বিসর্জন দিয়ে, নিজের চাহিদাকে মাটি চাপা দিয়ে, নিজের মনের ইচ্ছে গুলোকে মনের ভিতর লুকিয়ে রেখে হাসিমুখে পরিবারের সবার চাহিদা মেটানো যন্ত্র মানব হচ্ছে বাবা।

সবার মুখে হাসি ফুটানো, সবাই কে আগলে রাখা, সবার মাথার উপর বটবৃক্ষের মত ছায়া হয়ে থাকা এটাই যেনো বাবা নামের যন্ত্র মানবের আত্মার সুখ।

বাবা হলো একটা পরিবারের খুঁটি যতই ঝড় তুফান আসুক শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে থেকে সবাই নিরাপদে রাখা।

সুখে থাকুক সকল বাবা তাঁর মানিকদের নিয়ে।

লেখক- বাবা হারা এক মানিক।

কাজের চাপে ভুলে যাচ্ছেন পরিবারকে, মানসিকভাবে হচ্ছেন দুর্বল

পরিবার

ঘর ছেড়েছে সেই কবে গাড়িঘোড়া (উড়োজাহাজও অন্তর্ভুক্ত) চড়বার আশায়। সবে অ আ ক খ যখন বলতে শুরু করেছি মা আর দাদা-দাদীর কাছে তখন থেকেই আরেকটা লোভের সাথে পরিচয় হয় আমাদের

“পড়ালেখা করে যে,

গাড়িঘোড়া চড়ে সে”

ধীরেধীরে সেই লোভ ঘরবাড়ী আর পরিবার (মা-বাবা, ভাই আর বোন) ছাড়া করেছে অতি যতনে দৃশ্যমান গোপনে। নব্য প্রাপ্ত স্বাধীনতা আর ননিরপুতুল টাইপের আদরযত্ন বিহীন হয়ে কাটতে থাকে রাতদিন।

পরিবার
বন্ধনগুলোকে মজবুত করুন

পরিবারের প্রতি সবারই একটা গভীর দুর্বলতা কাজ করে। আমি-আপনি কেউ-ই এর বাইরে নই। যখনি অসুস্থতা ভর করে তখনি সামলে রাখতে পারিনা নিজেকে পরিবারের প্রয়োজন অনুভব থেকে। দুধের স্বাধ কি আর ঘোলে মিটে? নাহ! ফোনকল দেই একেক করে সবাই কে..
-হ্যালো আম্মা কেমন আছো?
-তুই কেমন আছিস রে? তোর গলাটা এতো ভারী আর আস্তে কথা বলছিস কেনো? শরীর খারাপ? (উনি কেমন আছেন সেটার উত্তরটা কিন্তু দেন নি)
-নাহ কিচ্ছু হয়নি! বলোনা কেমন আছো?
-বললাম তো ভাল। কত বার বলি!
-নাহ তুমি বলোনি তাই আবার জিজ্ঞেস করলাম।
-বলতো সত্যি কইরা, কি হইসে?
-নাহ তেমন কিছুনা! হাল্কা ঠা-ন-ডা.. (এই পর্যন্ত বইলা “লাগছে” শব্দটা বলার আর সুযোগ পাইনাই)
-আমিতো জানি তুই এরকম..সেরকম.. কতরকম..
কিছু ইচ্ছেমত বাণী প্রকাশ এবং জাহির করিলেন। আমিও কম নাহ! মনোযোগ সহকারে গিলতে লাগলাম মায়ের ভালোবাসা মাখা বকুনি গুলো।
অতঃপর ঔষধ এনে নিয়মিত খাবো প্রতিজ্ঞায় পাড় পেলাম। (বরাবরি ঔষধ অনিয়মিত খাওয়ায় আমি খুবি সবল)

পরিবার
মা তোমার মত কেউ হয়না

মা তোমাকে অনেক ভালোবাসি। আমার গাড়িঘোড়া চড়বার সেই লোভটা মলিন হয়ে গিয়েছে আজকাল। মাঝে মাঝে তোমার গায়ের গন্ধ নিতে ইচ্ছে করে। এখন আমার শুধু তোমার কোলে মাথাগুজে ঘুমুতে বড্ড ইচ্ছে করে আজকাল।

উপরের যে কথাগুলো বলছিলাম আপনার আমার প্রত্যেকটা সন্তানের কথা। এই ছোটখাটো বিষয় গুলো সবার সাথেই হয়ে থাকে।
আপনি জানেন কি?
প্রয়োজন, তাগিদ, আশা কতটুকু দূরে নিয়ে যাচ্ছে আমাদের আপনজনদের কাছ থেকে! মা’কে সময় দিন, পরিবার কে সময় দিন, আপনজনদের সময় দিন। দেখবেন অনেক রোগ’ই কমে গেছে আপনার। অনেকে আবার সময় দেয়ার জায়গা পান না।

 

ভালোবাসার আগে একটু ভেবে নিতে হবে

ভালোবাসা

তমা(ছদ্মনাম) ও অনির্বাণ(ছদ্মনাম) দুজনই উচ্চশিক্ষিত, ভালপরিবারের, একই ধর্মের এবং ভালো জব করে। তাদের ভেতর একটা ভালোবাসার সম্পর্ক তৈরি হয়। তারা এই সম্পর্কে শুধু ভালোবাসার জন্য আসেনি, ভালোবাসাকে সম্পূর্ণ করে পারিবারিকভাবে বিয়ে করার মত চিন্তাও করেছে। সবাই খুশির মনেই বিয়েটা মেনে নেবে। কিন্তু হঠাৎ যেন কি হয়ে গেলো। অনির্বাণকে তমার বোরিং মানুষ মনে হচ্ছে, মানিয়ে নিতে না পেরে অন্য ছেলেদের সাথে কথা বলে মিলিয়ে দেখেছে আসলেই অনির্বাণ কতোটা বোরিং ছেলে। আর এদিকে বেচারা অনির্বাণ কষ্ট পাচ্ছে তমার ব্যবহার গুলোতে। অনির্বাণ তমার কথার সাথে মানিয়ে নিতে পারছে না আর তমাও পারছে না এভাবে থাকতে, একদিন সব শেষ হয়ে যায়। অনির্বাণ মনে মনে ভেবে নেয় আর না। তমা শেষ চেষ্টা করে কিন্তু তার মত থেকে সরে আসে না।

অবশেষে ব্রেকাপ। এভাবে প্রতিদিন অনেক তরুণ তরুণীর সম্পর্ক শেষ হয়ে যাচ্ছে। শুধু শেষ না এতে যে কতটা মানসিক ক্ষতি হয় তার হিসেব নেই। কাজ করতে ইচ্ছে করেনা, কারো সাথে কথা বলতে ভাল লাগেনা এক কথায় থমকে যেতে চায় চলমান জীবন। জীবনে নতুন কেউ এলে তাকে মানা যায় না, মনে পড়ে যায় আগের সেই মানুষের কথা যার সাথে কাটিয়েছে অনেকগুলো সময়।

ব্রেকাপ
                                                                             ব্রেকাপ

কাউকে ভালোবাসার আগে কি কি বিষয় গুলো খেয়াল রাখা আবশ্যক??

পরিবার ও ধর্ম

পরিবার
                           পরিবার আমাদের জীবনে সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ

কাউকে হুট করেই ভালোবেসে ফেললাম তারপর দেখা গেলো তার অথবা আপনার পরিবার থেকে মেনে নিচ্ছে না। অবশেষে ব্রেকাপ, মন ভাঙ্গা, এমন কি আত্মহত্যাও করে ফেলে অনেক মানুষ। তাহলে আমাদের এমন কোন মানুষকে জীবনে আনতে হবে যাকে আমাদের পরিবার মেনে নেয়। যার ধর্মের সাথে আমাদের ধর্ম মেলে কারণ এখন এমন মুসলিম পরিবার আছে যারা হিন্দু বা অন্য ধর্মের মানুষদের সাথে আত্মীয় করবে না এবং হিন্দু পরিবার আছে যারা এসব বিষয়ে আরও বেশী স্পর্শ কাতর। পরিবার এর সাথে নিজের মত মেলার পর ই বিয়ের মত বড় একটা সিদ্ধান্তে নেওয়া উচিৎ কারণ বিয়ে শুধু দুটি মানুষ এর ভেতর সম্পর্ক তৈরি করে না। এখানে দুটি  পরিবার অঙ্গাঅঙ্গি ভাবে জড়িত।

সততা

ট্রাস্ট
                                                             সততা সম্পর্কের মূল মন্ত্র

যে কোন সম্পর্কের ভেতর অবশ্যই বিশ্বাস ও সততা থাকতে হবে। কারণ বিশ্বাস না থাকলে কখন কোন সম্পর্ক টিকে থাকে না। “তোমাকে পেলে আমার আর কিছু চাই না” বলার আগে নিজেকেই প্রশ্ন করা দরকার, সত্যিই কি তাই? তাকে পেলেই কি অন্ন, বস্ত্র,  আশ্রয়, অর্থসহ অন্য সব অভাব মিটে যাবে? যায় না। যায় না বলেই যদি এভাবে বলা যায়, “আমার জীবনের সুখকে সমৃদ্ধ করার জন্য তোমাকে চাই”  তাহলেই কি সংলাপ যুক্তিসঙ্গত হয়ে  ওঠে না?
“তোমার চেয়ে বেশি সুন্দর আর কেউ নয়”  তাকে খুশি করার জন্য এ রকম কথা না  বলে যদি বলা হয়, “তোমাকে আমার কাছে ভারি সুন্দর লাগে”  তাহলেই কি তা সত্যতায় অনন্য হয়ে ওঠে না?
“আমি কোনদিন তোমাকে ছেড়ে যাব না”  না বলে,  যদি বলা হয় “যত দিন সম্ভব তোমার কাছেই থাকব’” তবে কী তা মিথ্যা বলা হবে?
“সারাজীবন তোমাকে ভালবাসব”  বলার মতো নিশ্চয়তা বা গ্যারান্টি  কী কেউ কাউকে  দিতে পারেন আসলে?  পারেন না। কারণ মানুষের জীবনের সব কিছুই হচ্ছে বাস্তবতা।  প্রায় সব কিছুই নির্ভর করে অন্য কিছুর উপর। যাকে মানুষ ভালবাসে, তার  প্রতিমুহূর্তের আচরণের ওপর নির্ভর করে,  তাকে কতটা ভালবাসা যায় এবং কতদিন তা স্থায়ী হবে।  তাই  সঠিক হতে হবে সংলাপ।  যদি বলা হয়, “এই মুহূর্তে তোমাকে আমি আমার  সমস্ত অনুভূতি দিয়ে ভালবাসি, এখন এটাই সত্যি”।

ছেলে এবং মেয়ে উভয়কেই তাদের ভালোবাসার মানুষদের কাছে সৎ থাকা উচিৎ। কারণ সততা সব কিছুর উপরে। সততা সম্পর্ক কে ভালো রাখে।

মনের মিল বা মানসিক  ভাবে মিল থাকা

বাচ্চা
    ডিভোর্স বাচ্চাদের জীবনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে।

কোন সম্পর্ক শুরু করার আগে ভাবতে হবে দুজনের মানসিক দিক গুলো মিলে কিনা, তাদের চিন্তা ভাবনার মিল কতটুকু যদি ৫০% ও মিলে যায় তাহলে হয়তো সম্পর্কটা টিকে থাকে কিন্তু যদি ২০% ও না মিলে তাহলে শুধু কম্প্রোমাইজ করেই জীবন কাটাতে হবে, শুরু হবে অশান্তি, ঝগড়া, এক সময় ডিভোর্স। আর যদি এই সম্পর্কে পৃথিবীতে কোন প্রাণ আসে তাহলে তার জীবনটা শেষ হয়ে যাবে সবার আগে।

তাহলে এটা বলা যায় কোন সম্পর্ক শুরু করার আগে অবশ্যই মনের মিল, মানসিক অবস্থা সব কিছু মাথায় রাখতে হবে।

আপনি যখন আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনীর ওপর বিরক্ত, তখন হয়তো সামান্য কারণেই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারেন। এটা আপনার জন্য বুমেরাং হয়ে আসতে পারে। তাই সঙ্গী বা সঙ্গিনীর সঙ্গে কথা বলার আগে ঠাণ্ডা হয়ে বসে সমস্যাটি নিয়ে ভালভাবে ভাবুন। তারপর তার সঙ্গে কথা বলুন। দেখবেন আসলে সম্পর্ক ততোটা তিক্ত নয়।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অনেকগুলো বিষয় ঠিক হয়ে আসতে শুরু করে। সম্পর্কের ক্ষেত্রে বিষয়টা অকাট্য সত্য। আপনারা যখন সমস্যা নিয়ে আলোচনা করবেন,  দেখবেন সমাধান হাতের নাগালেই।

তারপর ও বলা যায় না ভালোবাসা স্নিগ্ধ হাওয়ার মত কখন কীভাবে এসে গায়ে লাগে। কিন্তু একটু ভেবে চিন্তে আগাতে দোষ কোথায়।

ভালোবাসা
                          এক সাথে সারাজীবন পার করা

ভালোবাসার পরিসমাপ্তি যেন কখনই ডিভোর্স অথবা ব্রেকাপ নামক শব্দ দিয়ে শেষ না হয়। ভালোবাসার পরিসমাপ্তি যেন শেষ বয়স পর্যন্ত এক সাথেই কাটে।

আমার ভালোলাগা একটি গান দিয়ে শেষ করছি। চাইলে শুনে দেখতে পারেন।

আমার রাতজাগা তারা
তোমার আকাশ ছোয়া বাড়ি
আমি পাইনা ছুঁতে তোমায়
আমার একলা লাগে ভারী…

                                     

                                                                                                         (গান-ভিন দেশী তারা, মুভি-অন্তহীন)

সত্যিকারের ভালবাসার সন্ধানে

সবাই হয়তো শুনে এসেছেন, ভালবাসার সংজ্ঞা নেই। অনেক মনীষী, মহারথীরাও একই কথা বলেছেন। কিন্তু আমি বলব ভালবাসার সংজ্ঞা অবশ্য আছে। সবাই এর গভীরতা উপলব্ধি করতে পারে না বিধায় এই কথা বলে। তাই হয়তো মানুষ সত্যিকারের ভালবাসার সন্ধান পায়না।

ভালোবাসা শব্দটা শুধু প্রেমিক-প্রেমিকার ভেতরে সীমাবদ্ধ নয়। এই কথাটা আমরা ভুলে যাই। বাবা-মার ভালবাসাই আমাদের জীবনের প্রথম ভালবাসার অনুভূতি সৃষ্টি করে। এই লেখাটির মাধ্যমে আমি পাঠকদের বলতে চাই ভালবাসাকে শুধু সম্পর্ক কেন্দ্রিক না করে তার বিশালতাকে জানার চেষ্টা করুন।

বাবা-মা ও সন্তান

পৃথিবী মানুষগুলো এখন আর আগের মত নেই। কারো কাছে এখন কারো জন্য সময় থাকে না। দুঃখের বিষয় অভিভাবকদেরও সময় থাকে না তাদের সন্তানের ব্যাপারে। শুধু টাকাপয়সা দিয়ে দায়িত্ব পূরণ করা যায় না। সন্তানদের প্রতি খেয়াল রাখা, তাদের গতিবিধি লক্ষ্য রাখা, পরীক্ষায় খারাপ ফলাফলের জন্য বকা না দেয়া এই কাজ গুলো করা হয়না। এখানে বাবামারা কিছু ভুল করে ফেলেন। আমি সবাইকে বলছিনা কিন্তু অধিকাংশের ক্ষেত্রে এরকমই হয়। অনেক বাবা-মা আছেন যারা সন্তানের জন্য সব কিছু করেন, অনেক ভালোবাসেন কিন্তু সেই ভালবাসা প্রকাশ করতে পারেননা। যা একদমই ঠিক না। আপনার ভালবাসার বহিঃপ্রকাশ আপনার সন্তানকে মানসিকভাবে অনেক শক্ত করে তুলবে। কোন পরিস্থিতিতে সে হার মানবে না, তৈরি হয়ে উঠবে আপনার শক্তিশালী ঢাল হিসেবে।

সৃষ্টিকর্তার পর যাদের কাছে আমরা চিরঋণী, চিরকৃতজ্ঞ তারা হলেন বাবা-মা। তাদের ছাড়া আমাদের অস্তিত্বই সৃষ্টি হতোনা। তাদের যত্ন আর ভালবাসা না পেলে আমরা মানুষ হতাম না। বর্তমান সন্তানরা তাদের বাবা-মাকে সেই ভালবাসা ও সম্মানটা দিতে পারেনা যেটা তাদের দেয়া উচিৎ। মমতাময়ী মায়ের আঁচলে বড় হওয়া ছেলে-মেয়েগুলো ভুলে যায় মা না থাকলে তার কি হতো। মা যখন কাজ করে তখন খুব কম সন্তানই আছে তাকে সাহায্য করে। সন্তানের উচিৎ মায়ের সকল কাজে মাকে সাহায্য করা। যে মা সারাদিন কাজ করে তার শরীরের যত্ন নেয়া। একটা বয়সে মায়েদের হাড় ক্ষয় হতে থাকে তার জন্য তাকে ঠিক মত খাবার খাওয়ানো। তার যেকোনো দুঃখের সময় তার পাশে দাঁড়ানো। আমরা তাদের টাকাপয়সা দিয়ে সাহায্য করতে না পারলেও মানসিকভাবে শান্তি দিতে পারি। বাবা নামের মানুষ গুলো সারা জীবন আমাদের আগলে রাখতে চায়। তারা কিছুই চায় না সন্তানের থেকে। বাবা-মায়ের মর্ম আমরা বুঝতে পারিনা। অনেকে বুঝতে পারে যখন তারা আর পৃথিবীতে থাকে না। শুধু বাবা অথবা মা দিবসে তাদের ভালোবাসি বলা আমার মতে অন্যায়। যার বাবা-মার সাথে সম্পর্ক ভালো না সে আর যাই করুক না কেন ভাল মানুষ হতে পারবে না। বাবা-মা একটা সময় তাদের কাছে বোঝা হয়ে দাঁড়ায়। বাবা-মার প্রতি সত্যিকারের ভালবাসা নেই বলেই বৃদ্ধাশ্রম গুলো আজ সংখ্যায় বেড়েই চলছে।

ভাইবোন

বাবা-মার পর সবচেয়ে কাছের সম্পর্ক হল ভাইবোনের সম্পর্ক। এই সম্পর্কটা আমাদের কঠিন পথে চলতে সাহায্য করে। সত্যিকারের ভালবাসার মূলমন্ত্র হল নিঃস্বার্থতা। যা আমরা এখন ভুলে গেছি। ছোটোবেলায় যখন একসাথে থাকা হত তখন সম্পর্কের গভীরতা বোঝা যায় না। ধীরে ধীরে যখন মানুষ বড় হয় তখন তার মানসিকতা আর মূল্যবোধ পরিবর্তিত হয়। কারো ভাল দিকে হয় আবার কারো খারাপ দিকে। যখন সম্পর্কের ভেতর স্বার্থপরতা চলে আসবে তখনই সেখানে আর ভালবাসা থাকবেনা। ভাইবোনরা একে অপরের সাহায্যকারী। অধিকাংশ ভাইবোনের সম্পর্ক ভেঙে যায় সম্পত্তির ভাগ নিয়ে। সেটা যদিও অনেক নিচু মন মানসিকতার পরিচয় দেয় কিন্তু মানুষ সেটা করতে পিছপা হয় না। আপনারা একে অন্যকে আগলে রাখলে কেউ আপনাদের ক্ষতি করতে পারবেনা।

স্বামী-স্ত্রী

জীবনে জন্ম ও মৃত্যুর সাথে আর একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল বিয়ে। বাবা-মা, ভাইবোনের সাথে আমরা আজীবন থাকি না। সাধারণত একজন ৭০ বছর বয়সের বিবাহিত মানুষের কাছে যদি জিজ্ঞেস করেন আপনার বৈবাহিক জীবন কতদিনের সে উত্তর দেবে ৪০-৫০ বছর। সুতরাং বুঝতেই পারছেন এই সম্পর্কটি আপনার জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত আপনার সাথে থাকবে যা আপনার পরিবার করতে পারবে না। বৈবাহিক সম্পর্ক শুধু কিছু চাহিদা পূরণের জন্য তৈরি হয়নি। এটা তৈরি হয়েছে আপনার সারা জীবনের ভালবাসার জন্য। মানুষ এখন যান্ত্রিক হয়ে গেছে। একজন আরেকজনের খোঁজ নেয়ার সময় পাননা, ভালবাসাতো অনেক দূরের কথা। যদি স্ত্রী গৃহিণী হয় তবে তাকে কখনই নিচু করে কথা বলা ঠিক না। সে তার নিজের পরিবার ছেড়ে আপনার পরিবারকে নিজের আপন করে নিয়েছে। তার সম্মানের প্রতি খেয়ালটা তাই আপনাকেই নিতে হবে। তাকে পর্যাপ্ত সময় দেয়া, তার শরীরের প্রতি খেয়াল রাখা আপনার কর্তব্য। সে গৃহিণী বলে সন্তানের দায়িত্ব শুধু তার নয়। আপনাকেও তাদের খেয়াল রাখা উচিৎ। যদি স্ত্রী চাকরিজীবী হয় তাহলে সাংসারিক কাজ গুলো ভাগ করে নেবেন। সন্তানদের দায়িত্বও। মোট কথা ভালবেসে তাকে আগলে রাখুন। জীবোনে সুখী হতে পারবেন।

স্ত্রী হিসেবে একজন মেয়ের অনেক দায়িত্ব থাকে। কারণ সেই তো পরিবারের চালিকা শক্তি। অনেক নারীবাদী নারীরা বলবেন মেয়েরা কেন এতো দায়িত্ব নেবে? একবার ভেবে দেখুন যার সাথে আপনার বিয়ে হয়েছে এবং আপনার সন্তানেরা আপনার জীবনের সব চেয়ে বড় শক্তি। তাদের দেখে রাখা আপনারই দায়িত্ব। আপনি যদি আপনার মমতা দিয়ে আপনার স্বামীকে আগলে রাখতে পারেন তাহলে জীবনের শেষ বয়সের হিসেবের খাতায় অনেক কিছুই লিখতে পারবেন। বেঁচে থাকাটা মনে হবে আশীর্বাদ। একটা পরিবারের কর্তা কখনই একজন পুরুষ হতে পারেনা। সেটা আমার সমাজ বললেও আমি বলবো না। প্রকৃত পক্ষে নারীরাই আমাদের পৃথিবীর চালিকা শক্তি।

পরিশেষে একটি কথা বলতে চাই, জীবনের প্রতিটি সম্পর্ককে আগলে রাখুন। ভালবাসা না থাকলে সম্পর্ক জীবিত থাকেনা, মরে যায় আকর্ষণ। আপনি যদি কাউকে সবচেয়ে ভাল উপহার দিতে চান তাহলে তাকে দিন, নিঃশর্ত ভালবাসা।