মাংসাশী ৫ টি উদ্ভিদকে চিনে রাখুন, হয়তো আপনার আশেপাশেই আছে

মাংসাশী

প্রকৃতির অন্যতম একটি উপাদান হচ্ছে গাছ। আমরা বিভিন্নভাবে প্রক্রিয়াজাত করে খাদ্য গ্রহণ করি। সবাই জানি যে গাছ সালোকসংশ্লেষণের মাধ্যমে খাবার তৈরি করে। মাটি থেকে পানি, সূর্যের আলো আর পাতার মাধ্যমে তৈরি করা খাবার দিয়েই গাছ তার জীবন চালনা করে। কিন্তু গাছ যদি পোকামাকড়, ব্যাঙ, ছোট ইঁদুর খায় তবে কেমন শোনাবে। হ্যাঁ আপনি ঠিক শুনছেন। আসুন জেনে নেই এমন ভয়ঙ্কর মাংসাশী গাছদের ব্যপারে।

মাংসাশী উদ্ভিদ ভেনাস ফ্লাইট্র্যাপ

সাধারণত এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর ক্যারোলিনার জলাভূমিতে পাওয়া যায়।

  • জীবনকাল প্রায় মোটামুটি ২০ থেকে ৩০ বৎসর পর্যন্ত
  • উদ্ভিদগুলোর মাঝ বরাবর লম্বা দন্ডাকৃতির কান্ডে নজরকাড়া সাদা ফুল ফোটে এবং এই ফুল থেকে চকচকে কৃষ্ণকালো অনেকগুলো ফল থোকায় থোকায় ধরে।
  • গাছগুলোর গোড়ার দিকে ১ ইঞ্চির সমান লম্বা সবুজ পাতা জন্মায়। এই পাতাগুলো দেখতে অনেকটাই ঝিনুকের মত অথবা অনেকটা মুখের চোয়ালের মতো হয়।
  • প্রতিটি পাতা তিন থেকে ছয় ইঞ্চির মতো লম্বা হয় এবং এতে অনেক গুলো ছোট ছোট লোম থাকে।
  • সবচেয়ে মজার বিষয় হল একটা পোকা হজম করতে ভেনাস ট্র্যাপের সময় লাগে ১০ দিনের মতো
  • মাংসাশী এই গাছটি এর পাতা দিয়ে পোকা আটকায়।
  • ভেনাস ট্র্যাপের পাতা একসাথে ৩ থেকে ৪টি পোকা ধরতে পারে এবং পরবর্তীতে যখন এর কার্যক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায় তখন আবার নতুন করে পাতা গজায় এবং পুনরায় সে নতুন পাতা গুলো পোকামাকড় ধরতে থাকে।

    মাংসাশী উদ্ভিদ কলসি

    মাংসাশী

    কলসি উদ্ভিদে ফাঁপা বিশেষ এক ধরনের পাতা রয়েছে যা একটি জগ কিংবা কলসির মত পানি ধরে রাখতে পারে। কলসির মত দেখতে এ পাতাগুলো শিকার ধরার ফাঁদ হিসেবে কাজ করে। গঠন ও আকৃতি থেকেই এদেরকে নাম দেওয়া হয়েছে কলসি উদ্ভিদ।

  • ছোট কলসি গাছগুলো কীটপতঙ্গ ধরে। বড় কলসি গাছগুলো ছোট ব্যাঙ, ইঁদুর শিকার করে।
  • কলসের সঙ্গে আটকানো পাতাটি লম্বা নলের মত কাজ করে।
  • নলটির মাথায় থাকে রংচঙে এক প্রবেশ পথ। যে কারণে কীটপতঙ্গরা আকৃষ্ট হয়। আর সেই ফাঁদে পা দেয়।
  • নলের তলদেশ অংশটি পেয়ালাকৃতির।
  • কলসির মাথায় ঢাকনা থাকে এবং ঢাকনাটি সব সময় খোলা থাকে।
  • প্রবেশ পথে মধু উৎপন্ন হয়। কলসির ভেতরে আরও মধু থাকে।
  • পোকাটি কলসির নলের ভিতরেই ঢোকার পরই বিপদে পড়ে যায়। নলের ভিতরের দেয়ালটি বরফের মতই মসৃণ আর পিচ্ছিল। তাই যতবার উঠতে যায় ততবার পড়ে যায়।

মাংসাশী উদ্ভিদ ওয়াটার হুইল

মাংসাশী

 

 

ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া, ভারত, জাপান ও আফ্রিকাতে এ উদ্ভিদটি পাওয়া যায়। ছোট আকারের শিকড়হীন এ উদ্ভিদটি পুকুর বা জলাশয়ের উপরে ভাসতে দেখা যায়।

  • উদ্ভিদের পাতাগুলোই ফাঁদ হিসেবে কাজ করে।
  • আকারে ছোট হওয়ায় এদের শিকারগুলোও ছোট হয়।
  • প্ল্যাঙ্কটন নামের ছোট ছোট জলজ প্রাণী আর প্রাণীদের লার্ভাই এদের মূল খাদ্য।
  • ওয়াটার হুইলের পাতাগুলো কাজ করে পানির নিচের ভেনাস ফাইট্র্যাপের মত।
  • পোকা ফাঁদে প্রবেশ করলে পাতার খন্ড দুটি এক সেকেন্ডেরও কম সময়ের মধ্যে বন্ধ হয়ে যায়।
  • পোকাটি পরিপাক হওয়ার পর পাতাগুলো আবার শিকার ধরতে প্রস্তুত হয়।

মাংসাশী উদ্ভিদ সূর্যশিশির

উদ্ভিদটির পাতাগুলো ছোট আর গোলাকার। উদ্ভিদটি আঠালো ফাঁদওয়ালা মাংসাশী উদ্ভিদের উৎকৃষ্ট উদাহরণ।

  • উদ্ভিদটি মাত্র ৩.৫ ইঞ্চি (৮ সে.মি.) চওড়া।
  • বড় আগাছা ও আশে পাশের গাছের নিচেই লুকিয়ে বেড়ে ওঠে ওরা।
  • সূর্যশিশিরের পাতাগুলোকে উজ্জ্বল লাল রঙের দেখায়। দেখে মনে হয় উপরে শিশির ছড়ানো।
  • এর পাতাগুলো অসংখ্য বোঁটা দিয়ে ঢাকা থাকে। প্রতিটি বোঁটার আগায় আঠালো এক ধরণের পদার্থ থাকে। এই আঠালো পদার্থগুলোর রঙই লাল।
  • বাতাসে এক ধরণের সুগন্ধও ছড়ায় এই মাংসাশী উদ্ভিদটি।
  • যে লাল রঙের আঠালো পদার্থের কথা বললাম, সেই পদার্থগুলো তৈরি করা হয় পোকা মাকড়দের আকৃষ্ট করার জন্য।
  • যখন পোকা উদ্ভিদটির পাতায় বসে তখনই আঠালো পদার্থ পোকার পায়ে লেগে যায়। পোকাটি যত ছোটার চেষ্টা করে তত বেশি করে এথা লেগে যায় ওদের শরীরে।
  • ৪/৫ দিনের মধ্যে পরিপাক শেষ করে আবার আগের অবস্থানে চলে যায়।

মাংসাশী উদ্ভিদ ঝাঁঝি দাম

মাংসাশী

 

বাংলাদেশের বিভিন্ন খাল বিলে এর অবাধ অবস্থান। বর্ষার শেষদিকে একটু কম পানিতে জন্মায় এরা।

  • এটি একটি মধ্যম আকারের জলজ বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ।
  • তেমন কোনো শেকড় থাকে না এবং পানিতে ভেসে বেড়ায় এই উদ্ভিদগুলো।
  • শেকড়ের বদলে এদের এক ধরণের থলে থাকে।
  • থলের মুখের প্রবেশ পথে খাড়া রোম থাকে।
  • এই রোমগুলোতে কোন জলজ প্রাণী স্পর্শ করলেই এর মুখ খুলে যায় এবং প্রাণীটিকে থলের ভেতর নিয়ে নেয়।
  • উদ্ভিদটির গাঢ় কমলা হলুদ রঙের ফুল হয়। হাল্কা সুবাস আছে এতে।